মেইন ম্যেনু

ইনু মশাল পেল, বাদল কি এমপি থাকবে?

হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বাধীন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদকে দলীয় প্রতীক মশাল দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তাহলে এখন বাদল নেতৃত্বাধীন জাসদ অংশের কি হবে এনিয়ে চলছে গুণজন। কেউ বলছেন তারা কি আবার একত্র হবেন না আলাদা থাকবেন, আর আলাদা থাকলে সাংসদ সদস্য পদ টিকবে কি এনিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়।

সংশ্লিষ্ঠরা বলছেন, সংসদ সদস্য পদ বেচে রাখতে বাদল আংশের চার এমপি আবার ইনু অংশের সাথে এক হয়ে যাবে। তানা হলে হয়ত সংসদ সদস্য পদ হারাতে পারেন বাদলরা। আর আগামী নির্বাচন গুলোতে বাদল অংশ জাসদের প্রতীক নিয়ে লড়তে পারবে না।

তখন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়তে হবে। না হলে ইনুর সাথে যোগ দিতে হবে।

এ বিষয়ে মইন উদ্দীন খান বাদলের সাথে মোবইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এখনি কোন মন্ত্রব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন মামলা চলছে আমি আপনাদের এসব বিষয়ে পড়ে জানবো।

গত ৬ এপ্রিল দুই পক্ষের শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার দুই পক্ষের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে ইসির সিদ্ধান্ত সম্বলিত চিঠি পাঠান ইসির সহকারী সচিব রৌশন আরা।

মশাল প্রতীক বরাদ্দের বিষয়ে হাসানুল হক ইনু ও শিরীন আখতারের কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, গত ১১-১২ মার্চ জাতীয় সম্মেলনে গঠনতন্ত্র অনুসারে কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটি গঠন করায় ইনুকে সভাপতি ও কার্যকরী কমিটির তালিকা ইসির কাছে পাঠানোয় তাদের মশাল প্রতীক বহাল রাখা হলো।

শরীফ নুরুল আম্বিয়া ও নাজমুল হক প্রধানের কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, বাদল-আম্বিয়া-প্রধানের কমিটি গঠনতন্ত্র অনুসারে না হওয়ায় ও প্রয়োজনীয় দলিলাদি দাখিল না করায় এ বিষয়ে ইসির করণিয় কিছু নেই।

গত ১২ মার্চ জাসদের কাউন্সিলে দুটি কমিটি গঠিত হয়। একটির সভাপতি মন্ত্রী ইনুর সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার। অন্যটিতে সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান।

দু’ পক্ষই নিজেদের মূল ধারা দাবি করে এলেও ইসির আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্তের ফলে ইনুর কাছে থাকল মশাল ও ইনু নেতৃত্বাধীন জাসদই মূলধারা হিসেবে স্বীকৃতি পেল।