মেইন ম্যেনু

‘ইরাকে নিষিদ্ধ রাসায়নিক গ্যাস ব্যবহার করেছিল আইএস’

গত বছর ইরাকে কুর্দি বাহিনীর উপর হামলার সময় ইসলামিক স্টেট (আইএস) মাস্টার্ড গ্যাস ব্যবহার করেছিল বলে দাবি করেছেন এক কূটনীতিক। রাসায়নিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ সংস্থার (ওপিসিডব্লিউ) একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, যুদ্ধক্ষেত্রে ৩৫ কুর্দি যোদ্ধা অসুস্থ হয়ে পড়ার পর গবেষণাগারের পরীক্ষায় সালফার মাস্টার্ড গ্যাস ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এই বিষাক্ত রাসায়নিক কারা ব্যবহার করেছে তা শনাক্ত করবে না ওপিসিডব্লিউ। কিন্তু ওই কূটনীতিক জানিয়েছেন, ফলাফল নিশ্চিত করেছে আইএসের যোদ্ধারাই রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছেন। 1কিন্তু ওপিসিডব্লিউ-র প্রতিবেদন এখনো প্রকাশ করা হয়নি বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কথা বলেছেন ওই কূটনীতিক। সাদ্দাম হোসেনের পতনের পর এই প্রথম ইরাকে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের কথা জানা গেল।

অগাস্টে ইরাকি কুর্দিদের স্বায়ত্তশাসিত এলাকার রাজধানী ইরবিলের দক্ষিণ-পশ্চিমে আইএস জঙ্গিদের সঙ্গে লড়াই করার সময় কিছু কুর্দি যোদ্ধা অসুস্থ হয়ে পড়েন। ওই সময় ঘটনাস্থল থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। এর আগে ইরাকের প্রতিবেশী সিরিয়ায় মাস্টার্ড গ্যাস ব্যবহার করা হয়েছে বলে অক্টোবরে জানিয়েছিল ওপিসিডব্লিউ। এক কর্মকর্তা জানান, ওপিসিডব্লিউ-র পরবর্তী বৈঠকে এই বিষয়টি তোলা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আগামী এক মাসের মধ্যে ৪১ সদস্যের সংস্থাটির বৈঠক হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

যদি আইএস রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করে থাকে তবে গোষ্ঠীটি তা কোথা থেকে যোগাড় করেছে তা এখনও নিশ্চিত নন বিশেষজ্ঞরা। তাদের আরো এ ধরনের অস্ত্র আছে কিনা তাও নিশ্চিত নন তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অন্য এক কূটনীতিক বলেছেন, সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র ভাণ্ডার ইরাকে ব্যবহৃত মাস্টার্ড গ্যাসের উৎস হতে পারে।

রয়টার্স