মেইন ম্যেনু

ইসরায়েলি হামলায় আরো এক ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে রোববার আরো এক ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত হয়েছে। অধিকৃত ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে গত এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা সংঘাতে এ নিয়ে ২৩ ফিলিস্তিনি প্রাণ হারালো।

রোববার অধিকৃত পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমের গ্রাম ও শহরগুলোতে ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে ইসরায়েলি বাহিনী। রামাল্লা শহরের কাছে বেইত এল এলাকার বাইরে ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালায় ইসরায়েলি সেনারা। এতে প্রাণ হারায় ১৩ বছরের কিশোর আহমাদ শারাকা। এর মাত্র একদিন আগে গাজায় ইসরায়েলি বিমান হামলায় নিহত হয়েছিলেন এক অন্তসত্ত্বা মা এবং তার তিন বছরের এক মেয়ে ।

তবে ওই ফিলিস্তিনি কিশোরের হত্যার খবর অস্বীকার করেছে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র আল জাজিরাকে বলেছেন, রামাল্লায় ফিলিস্তিনি দাঙ্গাকারীদের ছত্রভঙ্গ করার জন্য রাবার বুলেট ছুড়েছিল ইসরায়েলি বাহিনী। এ সময় শারাকা নামের এক কিশোর বুলেটবিদ্ধ হয়। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে বিক্ষুব্ধ ফিলিস্তিনিদের ওপর গুলিবর্ষণের অভিযোগ সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করেননি ইসরায়েলি সামরিক মুখপাত্র।

তবে রামাল্লা হাসপাতালের এক কর্মকর্তা আল জাজিরাকে ইসরায়েলি গুলিতে আহত শারাকার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার কিছুক্ষণ পর মারা গেছে ওই ফিলিস্তিনি কিশোর।
তিনি আরো জানিয়েছেন, ইসরায়েলি গুলিতে আরো বেশ কয়েকজন ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন এবং তাদের চিকিৎসা চলছে।

আল আকসা মসজিদে ইসরায়েলি সেনাদের অনুপ্রবেশ এবং মুসল্লিদের ধরপাকড়কে কেন্দ্র করে গত মাসের শেষ নাগাদ দু পক্ষের মধ্যে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে যার জের এখনো অব্যাহত রয়েছে।

ফিলিস্তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ফেসবুকে প্রচারিত এক পোস্টে জানানো হয়েছে, ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় চলতি মাসের শুরু থেকে এ পর্যন্ত ২০ ফিলিস্তিনি প্রাণ হারিয়েছেন। এদের মধ্যে নয়জন গাজায় এবং পশ্চিমতীর ও পূর্ব জেরুজালেমে মারা গেছেন আরো ১১ জন। তবে নুর হাসান ও তার মেয়ে এবং কিশোর শারাকাকে নিয়ে গত ১০ দিনে নিহত ফিলিস্তিনিদের সংখ্যা ২৩য়ে গিয়ে দাঁড়ালো।

এদিকে ইসরায়েলি দাবি করেছে, গত পহেলা অক্টোবর থেকে ইসরায়েলিদের ওপর এক ডজনের বেশি ছুরিকাঘাতের ঘটনা ঘটিয়েছে ফিলিস্তিনিরা। এসব হামলায় চার সরায়েলি নিহত এবং আরো ৬৭ জন আহত হয়েছেন।