মেইন ম্যেনু

‘ইহুদি ষড়যন্ত্র’ নস্যাতে ধর্মীয় দলগুলোকে পাশে চান হানিফ

‘ইহুদি-নাসারারা ইসলামের শত্রু। তারা যখন ফিলিস্তিনের মুসলিমদের উপর আক্রমণ করেছিল, তখন এই বাংলাদেশে সমস্ত ধর্মভিত্তিক দলগুলো আন্দোলনে নেমেছিল। আজ আপনারা কোথায়? আপনারা আজ কেন চুপ করে আছেন? আমি আশা করবো, ধর্মভিত্তিক দলগুলো খালেদার ‘ইহুদি ষড়যন্ত্র’ মোকাবিলায় মাঠে নামবে। আন্দোলনের মাধ্যমে আপনারা এই বার্তা দিবেন যে, বাংলাদেশে ইহুদি ষড়যন্ত্র সফল হবে না।’

রোববার (২২ মে) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কাযালয়ের সামনে স্বেচ্ছাসেবকলীগের এক আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এসব কথা বলেন।

বিএনপির ‘ইসলামবিরোধী অবস্থানের’ প্রতিবাদ করতে ধর্মভিত্তিক দলগুলোকে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানিয়ে হানিফ বলেন, ‘বিএনপি আজ গুপ্তহত্যাসহ নানা ধরনের ষড়যন্ত্রে ব্যর্থ হয়ে ইসরায়েলের সঙ্গে, মোসাদের সঙ্গে, ওই লিকুদ পার্টির নেতাদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে।’

হানিফ বলেন, ‘আসলাম চৌধুরী গ্রেপ্তার হয়েছেন। অনেক তথ্য গোয়েন্দাদের হাতে চলে এসেছে। আশা করছি, গোয়েন্দা বাহিনী শিগগিরই এই ষড়যন্ত্রের মূল হোতা খালেদা-তারেক জিয়া, যিনি মিস্টার রহমান; তাদের চক্রান্ত উন্মোচন করবে। কারণ একা আসলাম এই ষড়যন্ত্র করতে পারেন না।’

আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বলেন, ‘এখন আমার উপলব্ধি হচ্ছে যে, বিএনপি কার চক্রান্তে নির্বাচন বাতিল করতে জ্বালাও-পোড়াও করেছিল। ওই আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন মোসাদের সহায়তায়ই তারা ওই সময় জ্বালাও-পোড়াও করে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করেছিল।’

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের এ আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন- স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা আবু কাওছার, সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ দেবনাথ ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুন-অর-রশিদ প্রমুখ।