মেইন ম্যেনু

ঈদের ছবি দেখতে হলে দর্শক নেই

ঈদের ছুটিতে প্রেক্ষাগৃহে দর্শকের উপচে পড়া ভিড় থাকার কথা থাকলেও বাস্তবচিত্র ছিল ভিন্ন। ঈদের ছবি ‘রাজাবাবু’ এবং ‘আশিকি’ প্রথম সপ্তাহে আশানুরুপ ব্যবসা করতে পারেনি বলে জানিয়েছেন প্রেক্ষাগৃহগুলোর ব্যবস্থাপকরা।

গ্লিটজ প্রতিবেদন জয়ন্ত সাহা, ইমতিয়াজ হাসান, নাজমুস সাকিব রাজধানীর প্রেক্ষাগৃহগুলো ঘুরে কথা বলেছেন দর্শক আর হল ব্যবস্থাপকদের সঙ্গে।

অপু-শাকিব-ববি অভিনীত ‘রাজাবাবু’ ১৬০টি এবং নুসরাত ফারিয়া-অঙ্কুশ হাজরা অভিনীত ‘আশিকি’ ১০৫ টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে। মাল্টিপ্লেক্সে দর্শক সমাগম চোখে পড়লেও, এক পর্দার প্রেক্ষাগৃহগুলোতে তেমন একটা দর্শক দেখা যায়নি।

ভাওয়াল পিকচার্সের পরিবেশনায় ‘রাজাবাবু’ সিনেমাটি নিয়ে প্রচার হয়নি কম। শাকিব-অপু-ববি গ্লিটজকে সিনেমাটি মুক্তি পাওয়া আগে বলেন, সম্পূর্ণ মৌলিক কাহিনি নিয়ে নির্মিত সিনেমাটি এ বছরের সবচেয়ে বড় বাজেটের সিনেমা। সবার প্রত্যাশা ছিল, ‘হিরো দ্য সুপারস্টার’ – এর সাফল্যকেও ছাড়িয়ে যাবে ‘রাজাবাবু’। কিন্তু অভিযোগ উঠেছে, সিনেমাটি তেলেগু ছবি ‘ধাম্মু’র নকল।

SAM_2200

নারিন্দা থেকে আসা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র অরূপ বললেন, “আমরা টাকা খরচ করে সিনেমা দেখতে আসি, ঢাকাই সিনেমাকে ভালোবাসি বলে। কিন্তু পরিচালক-প্রযোজকরা এসব তামিল-তেলেগু কপি করে যদি আমাদের ধোঁকা দেন, তবে আমরা কেন আর সিনেমা হলে আসব? এসব সিনেমা তো ইউটিউবে সার্চ করলে পাওয়া যায়।”

আরেক দর্শক অভিযোগ করলেন, “আমাদের এত বোকা ভাবে কেন, পরিচালকরা? আমরা কি মুর্খ? আমরা নকল ছবি আর দেখতে চাই না। শাকিব-অপুদের কাছেও অনুরোধ, এসব নকল ছবি আর করবেন না আপনারা।”

এ প্রসঙ্গে ঢাকার অভিসার সিনেমা হলের মালিক খাইরুল কবীর বললেন, “শাকিব-অপুর ছবির চাহিদা ঈদে প্রচুর। তাদের নামেই ছবি চলে। কিন্তু এবার তারা জেনে গেছে, সিনেমাটি নকল। তাই সিনেমাটি নিয়ে আগ্রহ নেই তাদের।”

তবে এতে অভিনয়শিল্পীদের দোষ দেখছেন না দর্শক হাসান আরিফ। তিনি বলছেন, “শাকিব-অপু-ববির কোনো দোষ নেই। তারা তো শুধু অভিনয় করে। দোষ হল পরিচালকের। তিনি তো ভালো করেই জানতেন, সিনেমার গল্প, কাহিনি সব নকল। গানও নকল। তিনি কিভাবে একটা ভারতীয় ছবি নকল করে সেটাকে নিয়ে মাতামাতি করছেন?”

তবে শাকিব-অপু জুটির ভক্তদের কাছে ভালই গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছে সিনেমাটি। তারা বলছেন, শাকিব-অপুকে ভালবাসেন বলেই তাদের সিনেমা দেখতে এসেছেন।

পল্লবী থেকে পূরবী সিনেমা হলে ‘রাজাবাবু’ দেখতে আসা আনিসুর জানালেন, ‘শাকিব-অপু মানেই হিট ছবি। সাথে আছে ববিও। তাই লোভ সামলাতে পারলাম না। চলেই এলাম, সিনেমা দেখতে।”

bolaka-cinema

 

ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্স, ব্লকবাস্টারস, শ্যামলী সিনেপ্লেক্স, বলাকা সিনেওয়ার্ল্ড ,মতিঝিলের মধুমিতা সিনে, নয়াপল্টনের জোনাকি, মিরপুরের সনি সিনেমা, বনানীর সৈনিক সিনেমা হলে চলছে নুসরাত-অঙ্কুশের ‘আশিকি’ সিনেমাটি।

ফিরোজ মমতাজ শৈলী, তাওহিদুল ইসলাম নাবিল সিনেপ্লেক্সে সিনেমাটি দেখে এসে বললেন, “অসাধারণ হয়েছে নির্মাণশৈলী। টিকিট কেটে এমন ঝা-তকতকে সিনেমাই তো আমরা দেখতে চাই। নুসরাত ফারিয়া টিকে যাবে। অঙ্কুশের সঙ্গে জুটিটা দারুণ হয়েছে।”

সনি সিনেমা হলে সিনেমাটি দেখতে আসা রুবেল, অনিক বললেন, “নুসরাত ফারিয়াকে মডেল হিসেবে দারুণ লাগে। সে প্রথম চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছে। কেমন করেছে মূলত সেটা দেখার জন্যই পারিবারিক দাওয়াত মিস দিয়ে এই সিনেমা দেখতে আসা।”

স্কুল-কলেজ পড়ুয়া তরুণরাই যে ছবি দেখতে এসেছেন, এমন কিন্তু নয়। চাকরিজীবীদের অনেকেই সপরিবারে সিনেমা হলে চলে এসেছেন। মিরপুরের শেওয়াপাড়া থেকে ‘আশিকি’ দেখতে আসা অনিকেত আরমান বললেন, “সারা বছরই চাকরি নিয়ে ব্যস্ত থাকি। ছুটি মেলে কেবল ঈদ মৌসুমে। তাই সপরিবারে একটু বিনোদনের আশায় এলাম।”

সিনেপ্লেক্স কর্তৃপক্ষও বলছে, ঈদের দিনগুলোতে ‘আশিকি’ দেখতে আসা দর্শকের সংখ্যা বিকাল ও সন্ধ্যার শোগুলোতেই বেশি। সিনেমাটির টিকিটও বিক্রি হচ্ছে দেদারসে। ঈদের প্রথম সপ্তাহে সিনেমাটি কেমন যায়, তার উপর নির্ভর করবে সিনেমাটি পরবর্তী কয় সপ্তাহ এই প্রেক্ষাগৃহে চলবে।

ওদিকে যমুনা ব্লকবাস্টারস সিনেমাসে ‘আশিকি’, ‘রাজাবাবু’ র পাশাপাশি চলছে ইমপ্রেস টেলিফিল্মসের ‘প্রার্থনা’ এবং ‘জালালের গল্প’। যমুনা ব্লকবাস্টারস গ্লিটজকে জানিয়েছে, ‘আশিকি’র তুলনায় ‘রাজাবাবু’র দর্শক তুলনামূলক কম। তরুণ দর্শকের সংখ্যাই বেশি। মধ্যবয়সীদের কেউ কাটছেন ‘প্রার্থনা’ কেউ কাটছেন ‘জালালের গল্পে’র টিকিট। ‘জালালের গল্প’ সিনেমাটি অস্কারে যাচ্ছে শুনে বিনোদন দুনিয়ার অনেকেই নাকি সিনেমাটি দেখতে আসছেন।

তবে মধুমিতার চিত্রটি ভিন্ন। একাধিকবার এই হলে গিয়ে দেখা গেছে, ‘আশিকি’ সিনেমাটি দেখতে সেভাবে দর্শক নেই। হলটির টিকিট কাউন্টার থেকে জানা গেল, মধুমিতার মূল দর্শক ছিল শাকিব – অপুর। হিন্দি সিনেমা আমদানি ইস্যুতে মধুমিতা হল মালিক ইফতেখার উদ্দিন নওশাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করলে তিনি সিদ্ধান্ত নেন, হলে শাকিব খান অভিনীত সিনেমাটি চালাবেন না।

eid-movie--1

২০১৪ সালে শাকিব অভিনীত ঈদের সিনেমা ‘হিরো-দ্য সুপারস্টার’ দেখতে এই হলে দর্শকের ঢল নামলেও যৌথ প্রযোজনার ‘আশিকি’ দেখতে তেমন দর্শক নেই বলে জানালেন হলটির ম্যানেজার রেজাউল করিম।

নয়াপল্টনের জোনাকি হলেও ‘আশিকি’র তেমন দর্শক নেই বলে দেখা গেছে।

‘আশিকি’র বিরুদ্ধেও উঠেছে নকলের অভিযোগ। বলাকা সিনেমা হলে সিনেমাটি দেখে এসে মোহাম্মদ আবদুল্লাহ জানালেন, সিনেমাটির অনেক দৃশ্যের সঙ্গে তিনি বাপ্পী-মিষ্টি জান্নাত অভিনীত ‘লাভ স্টেশন’ সিনেমার মিল খুঁজে পেয়েছেন। দুটি সিনেমাই তেলেগু সিনেমা ‘ইশক’ এর নকল বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি।

“টাকা দিয়ে টিকিট কেটে দুবারই আমি নকল সিনেমা দেখলাম। আমার তো পুরো টাকাই জলে গেলো।”

সাধারণত এ সময় দুপুরের পরের প্রদর্শনীগুলোতে হাউসফুল থাকে। কিন্তু সিনেপ্লেক্স ছাড়া অন্য কোথাও তেমন ভিড় কিন্তু দেখা যায়নি।

অভিসার ও মধুমিতার ব্যবস্থাপকরা বলছেন, ঈদের দিনগুলোতে যতটা দর্শক তারা আশা করেছিলেন, তার সিকিভাগও পাননি। তবে ছুটি কাটিয়ে ঢাকাবাসী ফিরে এলে চাঙ্গা হয়ে উঠবে হল, এমনই প্রত্যাশা করছেন তারা।

প্রেক্ষাগৃহের পরিবেশ, টিকিট কালোবাজারি নিয়ে বরাবরের মতো দর্শকের আছে নানা অভিযোগ। মিরপুরের এশিয়া, সনি সিনেমা হলের টিকিট বিক্রির কাউন্টারটিও বন্ধ পাওয়া যায়। কাউন্টার বন্ধ থাকায় টিকিট বিক্রি হচ্ছে কালোবাজারে। রয়েল ক্লাসের টিকিটমূল্য ২৫ টাকা, অথচ সেই টিকিট বিক্রি হচ্ছিল ৮০ টাকায়, ডি/সি টিকিট বিক্রি হয়ে গিয়েছিলো ঢের আগেই।

eid-movie--2

দর্শক জুয়েল, আরাফাত জানালেন, টিকিট কাউন্টার বন্ধ থাকায় তাদেরকে বেশি টাকায় প্রিয় নায়ক-নায়িকার ছবির টিকিট কিনতে হচ্ছে।

এবারের ঈদে ঢাকার বেশ কটি হলই পায়নি নতুন ছবি। রাজমনির পাশের হল রাজিয়াতে চলছে ময়ূরী-আমিন খান অভিনীত ‘মহিলা হোস্টেল’, পুরান ঢাকার রায়সাহেব বাজারের আজাদ ম্যানসনে চলছে শাকিবের অনেক পুরনো ছবি ‘দুই নাম্বার’,মালিবাগের পদ্মা-সুরমা হলে চলছে অমিত হাসান অভিনীত ‘জজ সাহেব’ এবং শাকিব-অপু-অহনা অভিনীত ‘দুই পৃথিবী’।