মেইন ম্যেনু

ঈদের পোশাকের জন্য কেঁদেছিলাম : মেহজাবিন

বর্তমানে মডেলিং জগতের জনপ্রিয় মুখ মেহজাবিন চৌধুরী। ২০০৯ সালে লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার এর মাধ্যমে তিনি মিডিয়া জগতে পা রাখেন। এরপর অার ফিরে তাকাতে হয়নি।

গ্লামারফুল মেহজাবিন বর্তমানে বিজ্ঞাপন ও নাটক নিয়ে ব্যস্ত পার করছেন। এবারের ঈদে তার অভিনীত বেশকিছু নাটক বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচারিত হবে। ব্যস্ত সময়ে জানালেন কিছু কথা।

ঈদে কি কি কাজ করেছেন?

মেহজাবিন: এবার ঈদে এক ঘণ্টার নাটকে অনেক বেশি কাজ করা হয়েছে। বিভিন্ন টেলিভিশনে ঈদের সময় এগুলো প্রচার হবে। এছাড়াও বেশ কিছু নাচের প্রোগ্রামে দেখা যাবে।

নাচ কি আগে থেকে জানা ছিলো?

মেহজাবিন: না, নাচ কখনো শেখা হয়নি। তবে এখন শিখছি।

চ্যানেল আইতে ঈদে প্রচারিত এক ঘণ্টা নাটক ‘ম্যাচিউরড’ গল্প নিয়ে কিছু বলুন?

মেহজাবিন: আসলে গল্পটি সমসাময়িক প্রেমিক-প্রেমিকাদের গল্প। পুরো গল্প এখন বলা যাবে না। তবে বলতে পারি গল্পটি এক কথায় চমৎকার। আর রাজ ভাইয়ার পরিচালনায় কাজ করতে বেশ ভালো লাগে।

সিনেমায় কেনো আপনাকে দেখা যায় না?

মেহজাবিন: আমি আসলে অনেক ছোট। সিনেমায় কাজ করার মতো আমার এখনো সময় বা বয়স কোনটাই হয়নি। যখন মনে হবে আমার সিনেমায় কাজ করার জন্য আমি পুরোপুরি প্রস্তুত তখন থেকে সিনেমায় কাজ করবো।

নতুন কোনো বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন?

মেহজাবিন: ঈদ উপলক্ষে মোবাইল কোম্পানি বাংলা লিংকের দুইটি বিজ্ঞাপনে কাজ করেছি। আরো কিছু বিজ্ঞাপনে কাজ করার কথা রয়েছে।

মডেলিং নাকি নাটক কোনটি আপনার পছন্দ?

মেহজাবিন: মডেলিং করতে আমি খুব বেশি পছন্দ করি। এরপর নাটক।

ঈদ কোথায় করবেন?

মেহজাবিন: ঈদ ঢাকাতেই আব্বু-আম্মুর সঙ্গে করা হবে।

ঈদ শপিং হয়ে গেছে?

মেহজাবিন: না এখনো ঈদ শপিং করা হয়নি। তবে খুব তাড়াতাড়ি করে ফেলবো। আমি আসলে কাপড় ডিজাইন করে বানিয়ে পড়তে পছন্দ করি।

ছোটবেলা ঈদের সঙ্গে বর্তমান ঈদের কোনো পরির্বতন আছে?

মেহজাবিন: আসলে বছরে একবারই ঈদ আসে। তাই ঈদের সময় আনন্দ করতে পছন্দ করি। হ্যাঁ ছোটবেলায় যেটা হতো ঈদকে কেন্দ্র করে পড়াশুনা থেকে এক সপ্তাহের জন্য ছুটি পেতাম। আর এখন এক সপ্তাহের জন্য শুটিং থেকে ছুটি পাই। এতটুকুই পার্থক্য। কিন্তু আনন্দ আমার কাছে একই ।

ঈদের কোনো মজার অভিজ্ঞতা বলবেন আমাদের?

মেহজাবিন: একটি মজার অভিজ্ঞতা এখনও আমার মনে পড়ে। ছোটবেলায় প্রথমে ঈদে সালোয়ার কামিজ পড়ি। খাওয়া-দাওয়া শেষে ঘুমিয়ে যাই। ঘুম থেকে উঠে দেখি জামাটি কুচকিয়ে গেছে। বুদ্ধি করে ইস্ত্রি দিয়ে কাপড়টি ঠিক করতে গেলাম, দেখলাম সালোয়ার কামিজটি গোল হয়ে গেছে। তা দেখে আমি অনেক কেঁদেছিলাম। কারণ জীবনের প্রথম সালোয়ার কামিজটি নষ্ট হয়ে গিয়েছিলো। এখনও আমি সেই কাপড়টি রেখে দিয়েছি।

ছোটবেলায় কার কাছ থেকে প্রথম সেলামি পেয়েছেন?

মেহজাবিন: ছোটবেলায় আব্বুর কাছ থেকে প্রথম সেলামি পাওয়া। দুই টাকার নোট কখনও পাঁচ টাকার নোট আমার কাছে আসতো। এতো পরিমাণ সেলামি পেতাম যে তা দেখে মনে হতো আমি অনেক বড়লোক।

কাজের অনুপ্রেরণা কে সবচেয়ে বেশি দেয়?

মেহজাবিন: আমার কাজের অনুপ্রেরণা আম্মু। প্রথম থেকেই লাক্স চ্যানেল আই সুপার স্টার’এ আম্মুই আমাকে অডিশন দিতে নিয়ে এসেছিলেন। লম্বা লাইনে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতেন তিনি। কষ্ট হলেও সবসময় তিনি আমার পাশে পাশে থাকতেন।