মেইন ম্যেনু

ঈদে রান্নাঘর দ্রুত পরিষ্কার করার উপায়

ঈদ আনন্দ আর খুশির একটি বড় অংশ হচ্ছে মজাদার খাবার। এই খাবার প্রস্তুত করা হয় রান্নাঘরে। তাই রান্নাঘরটি হতে হবে পরিষ্কার ও ঝকঝকে। কারণ নোংরা স্থানে রান্না করা খাবার খেলে অসুস্থ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কোরবানির ঈদে বাড়ির গৃহিণীদের রান্নাঘরেই সময় কাটাতে হয় বেশি। আর বাড়ির অন্যান্য কক্ষের চেয়ে বেশি নোংরা হয়ে থাকে রান্নাঘরটিই। যদি আপনি সচেতন না হন তাহলে রান্নাঘর পরিষ্কার করতে আপনার অনেক সময় ব্যয় হয়ে যাবে। কিন্তু মাত্র ১৫-২০ মিনিটেই রান্নাঘরটি ঝকঝকে পরিষ্কার করে ফেলা সম্ভব। চলুন তাহলে রান্নাঘর পরিষ্কার করার সহজ নিয়ম জেনে নিই।

১। প্রথমেই পরিষ্কার করার জন্য প্রয়োজনীয় সব উপাকরণগুলো একত্রিত করুন। স্পঞ্জ, পরিষ্কারক, মোছার কাপড় ইত্যাদি জিনিসগুলো যদি এক জায়গায় না থাকে তাহলে এগুলো খুঁজে বের করতেই অনেকটা সময় ব্যয় হয়ে যাবে।

২। পানি গরম করে সিঙ্কটি ভরে নিন। এর মধ্যে গুঁড়া সাবান যোগ করুন। এবার সাবান পানির মধ্যে এঁটো থালাবাসনগুলো ভিজিয়ে রাখুন। সবচেয়ে ভারী প্লেটটি সবার নীচে রাখুন। বড় পাত্রের ভেতরে গরম সাবান পানি দিয়ে সিঙ্কের পাশে রাখুন।

৩। এগুলো ভিজিয়ে রেখে কিচেনের কাপবোর্ড, চুলার আশপাশ এবং ফ্লোরের আবর্জনা পরিষ্কার করে মুছে ফেলুন।

৪। অপ্রয়োজনীয় জিনিস রান্নাঘর থেকে বের করে ফেলুন। এগুলো একটি বাক্সে ভরে স্টোর রুমে রাখুন।

৫। রান্নার কাজ শেষে চামচ, ছুরি, কাঁচি, চপিংবোর্ড, মসলার কৌটা ইত্যাদি সরঞ্জামগুলো নির্দিষ্ট জায়গায় রাখুন।

৬। এরপর সিঙ্কে ভেজানো থালাবাসনগুলো ধুয়ে ফেলুন। গরম সাবান পানিতে ভিজিয়ে রাখার ফলে ধোঁয়া অনেক সহজ হয়ে যাবে।

৭। ধোয়া থালাবাসন ও হাঁড়িপাতিলগুলো পানি ঝড়িয়ে নির্দিষ্ট স্থানে রেখে দিন।

৮। সবশেষে সিঙ্কটি স্পঞ্জ দিয়ে ঘষে পরিষ্কার করে নিন। তারপর মোছার কাপড় ও স্পঞ্জ ধুয়ে শুকনো স্থানে রাখুন।

৯। ময়লা আবর্জনা ময়লার ঝুড়িতে রেখে ভালো করে ঢেকে রান্নাঘরের বাহিরে নির্দিষ্ট রাখুন। যাতে পরদিন ময়লা নিতে আসলে সহজেই দিয়ে দিতে পারেন।

টিপস

– যত বেশি মানুষ হবে ততবেশি খাওয়া হবে এবং এঁটো থালাবাসনের পরিমাণ ও বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু রান্নাঘরের কাজ যদি পরিবারের সবার মধ্যে ভাগাভাগি করে করা যায় তাহলে আপনার একার উপর চাপ কম পড়বে এবং সময় ও কম লাগবে।

– আপনার পরিবারের সবার মধ্যে খাওয়ার পড়ে নিজের প্লেটটি ধুয়ে রাখার অভ্যাস গড়ে তুলুন। একটি প্লেট ধুয়ে রাখতে তেমন সময় লাগেনা। কিন্তু অনেকগুলো প্লেট একসাথে ধুতে গেলে সময় অনেক বেশি লাগে।

– পরিবারের ছোট সদস্যটিকেও নিজের কাজ নিজে করতে শেখান এবং আপনার কাজে সাহায্য করতে বলুন। পরিবারের সবাই যখন আপনার কাজে সহযোগিতা করবে তখন আপনি খুব কম সময়ে রান্নাঘরের কাজ শেষ করতে পারবেন এবং ঈদের আনন্দও সবাই উপভোগ করতে পারবেন।