মেইন ম্যেনু

ঈদ উপলক্ষে ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে লঞ্চের টিকিট

আসন্ন ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে লঞ্চে চলাচলকারী যাত্রীদের টিকিটং ব্যবস্থা চালু হচ্ছে। রাজধানীর সদরঘাটের নৌ-টার্মিনালের পশ্চিমপাশে নির্মাণাধীন নতুন ভবন থেকে এ টিকিট বিক্রি করা হবে।

এবার সকল যাত্রীদের টিকিট সংগ্রহ করে লঞ্চে উঠতে হবে। টিকিট ছাড়া কোনো যাত্রীকেই লঞ্চে উঠতে দেয়া হবে না। এছাড়া অতিরিক্ত যাত্রী চাপ দেখা দিলে ফেরির মাধ্যমে যাত্রী পারাপার করা হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে বিআইডব্লিটিএ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি মিলনায়তনে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় আয়োজিত আসন্ন ঈদে সুষ্ঠু ও নিরাপদ চলাচল নিশ্চিতকরণ বিষয়ক এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আরো বলা হয়েছে। ঈদের পূর্বের তিনদিন ও পরের তিনদিন নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ছাড়া সকল ধরনের ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ফেরি পারাপার বন্ধ থাকবে। শুধু গরুবাহী ও পিঁয়াজের ট্রাক পারাপার সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার থাকবে।

এছাড়া ঈদে যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে লঞ্চগুলোর ওপর কড়া নজরদারি থাকবে বলে জানিয়েছেন নৌমন্ত্রী শাজাহান খান। তিনি বলেছেন, ‘কোনো অবস্থায় লঞ্চের ছাদে যাত্রী তুলতে দেয়া হবে না। গত রমজানের ঈদ আমরা ভালোভাবে পার করেছি। নতুন করে দুর্ঘটনা ঘটুক আমরা চাই না।’

তবে বিগত বছরগুলোর তুলনায় নৌ-দুর্ঘটনা কমেছে এমন দু’টি উদাহণ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘২০০৪ সালে ৩১টি দুর্ঘটনা ঘটেছে, সেখানে ২০১৫ সালে এ পর্যন্ত দুর্ঘটনা ঘটেছে মাত্র ৫টি।’

মন্ত্রী বলেন, ‘নৌ-পথে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে পেরেছি। ফলে নতুন নতুন জাহাজ আসছে। এ পর্যন্ত ৯টি জাহাজ এসেছে। মধুমতি নামের আরেকটি জাহাজ আনা হয়েছে।’

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘এবারের ঈদে লঞ্চের ওপর কড়া নজরদারি থাকবে, যাতে অতিরিক্ত যাত্রী তুলতে না পারে। অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ থাকলে ফেরি পারাপারের ব্যবস্থা করা হবে।’

এ সময় নৌ-সচিব শফিক আলম মেহেদী, বিআইডব্লিইউটিএ চেয়ারম্যান কমডোর ম মোজাম্মল হক, বিআইডব্লিউটিসি’র চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরেএর মহাপরিচালক, পুলিশ সদর দপ্তরের ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব, বিআরটিএ, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর, বিজিএমই, লঞ্চ মালিক সমিতি, নৌ-পুলিশের প্রতিনিধি, বিভিন্ন জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিস্ট বিভাগের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।