মেইন ম্যেনু

উইন্ডিজকে উড়িয়ে দিয়ে শুরু বাংলাদেশের

২৭ জানুয়ারি থেকে অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ শুরু হলেও, একটু আগে ভাগেই বাংলাদেশে এসেছে দলটি। মূল টুর্নামেন্টের আগে বাংলাদেশের সাথে চার ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলাই এর কারণ। সোমবার সিরিজের প্রথম ম্যাচ ছিলো সেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের; প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ দল।

বাংলাদেশি স্পিনারদের বোলিং এবং সাইফ-শান্তর দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। প্রথম ম্যাচে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে জয় পায় মিরাজবাহিনী। ফলে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেলো বাংলাদেশ।

১১৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতে একটু ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। দলীয় মাত্র ৮ রানেই পিনাক ঘোষকে হারায় বাংলাদেশ। ওবেদ ম্যাককয়ের বলে স্লিপে দাঁড়ানো পোপের হাঁটে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন এই তরুণ। তবে জয়রাজ শেখকে নিয়ে প্রাথমিক ধাক্কা দারুণ ভাবে সামলে নেন আরেক উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সাইফ হাসান। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৩৮ রানের জুটি গড়েন এই দুই ব্যাটসম্যান।

দলীয় ৪৬ রানে প্রায় প্রায় একই ঢঙ্গে আউট হন জয়রাজ। স্মিথের বলে উইকেট রক্ষক ইমলাচের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন এই ব্যাটসম্যান। এরপর নাজমুল হোসেন শান্তকে নিয়ে বাকি কাজ সারেন সাইফ। ৭০ রানের অপরাজিত জুটি গড়ে দলকে মাত্র ২০.৩ ওভারেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়ে মাঠ ছাড়েন এই দুই ব্যাটসম্যান।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪১ রান করেন শান্ত। টি-টোয়েন্টি স্টাইলে ব্যাট করে মাত্র ৩৬ বলে এই রান করতে ৬টি চার এবং ১টি ছক্কা মারেন তিনি। এছাড়া একপ্রান্ত আগলে রেখে ৬৮ বলে ৫টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে সাইফ করেন ৩৯ রান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ১টি করে উইকেট নেন স্মিথ এবং ম্যাককয়।

এর আগে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালোই করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। প্রথম এবং দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে দারুণ সংগ্রহ করে ক্যারিবীয়ান যুবারা। তবে এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকলে আর ঘুড়ে দাঁড়াতে পারেনি তারা।

মূলত স্পিনার দাপটে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় ক্যারিবীয়ানরা। সালেহ আহমেদ শাওন গাজীর সঙ্গে সঞ্জিত সাহা এবং সাঈদ সরকারের বোলিং তোপে ৩৯.২ ওভারে মাত্র ১১৪ রানে অলআউট হয়ে যায় সফরকারীরা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩১ রান করে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান গিড্রন পোপ। ৪১ বল খেলে ২টি চার এবং ৩টি ছক্কার সাহায্যে এই রান করেন তিনি।

বাংলাদেশের পক্ষে ২৪ রানে ৪টি উইকেট নিয়ে দিনের সেরা বোলার শাওন গাজী। এছাড়া ২টি করে উইকেট নেন সাঈদ এবং সঞ্জিত। তবে এই দুই স্পিনার উইকেট দুটি করে পেলেও রান দেয়ার ক্ষেত্রে ছিলেন ভীষণ মিতব্যয়ী। ৯ ওভার বল করে মাত্র ৯ রান দেন সাঈদ। আর সঞ্জিত ৮ ওভার বল করে ১৪ রান দেন ।