মেইন ম্যেনু

উখিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ভবনের ছাদে ফাটল

উপজেলা প্রাণকেন্দ্রে প্রতিষ্ঠিত একমাত্র মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান উখিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ভবনে ঝুঁকি নিয়ে পড়ালেখা করছে ছাত্র-ছাত্রীরা। পাঠদান করার সময় ভয়কাতুর দৃষ্টি নিয়ে বার বার উপর দিকে তাকানোর কারণে মানসিকভাবে ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের বিব্রতবোধ করতে হচ্ছে। এ নিয়ে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সহ জেলা পর্যায়ের বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অবহিত করা হলেও প্রয়োজনীয় সংস্কারের উদ্যোগ গ্রহণ না করায় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

উখিয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল হোসাইন সিরাজী জানান, ১৯৪০ এর দশকে প্রতিষ্ঠিত এ বিদ্যালয়ে প্রায় ১১ শতাধিক নিয়মিত ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। প্রতি বছর সমাপনী পরীক্ষা সহ এস.এস.সি পরীক্ষায় প্রশংসনীয় পাশের হার অর্জন করতে সক্ষম হওয়ায় এ স্কুলে প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থীর হার বাড়লেও সম্প্রসারিত হচ্ছে না স্কুল ভবন। উপরুন্ত বিশাল আকার হলরুমের ছাদের বিভিন্ন অংশে পেলেস্তারা খসে পড়ে লোহার রড দেখা যাচ্ছে।

তিনি জানান, ১৯৭৭ সালে নির্মিত এ ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার কারণে ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়া মারাত্মকভাবে ব্যাহত হওয়ার বিষয়টি প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে জানানো হয়েছে। বিদ্যালয়ের এক সময়ের শিক্ষক বর্তমান কক্সবাজার কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর এম. ফজলুল করিম উখিয়া উচ্চ বিদ্যালয় হলরুমের এহেন করুন অবস্থা দেখে গভীর দুঃখ প্রকাশ করে সাংবাদিকদের জানান, স্থানীয় প্রশাসনের উচিত অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিদ্যালয় হলরুম খানা সংস্কার করে পড়ালেখার মান পরিবেশ সম্মত করা।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি স্থানীয় সদর রাজাপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী জানান, জেলা শিক্ষা প্রকৌশলী সমীর কুমার দাশ সম্প্রতি বিদ্যালয় পরিদর্শন করে জরাজীর্ণ হলরুমটি সংস্কারের আশ্বস্ত করলেও তা বাস্তবায়নে আলোর মুখ দেখেনি। যে কারণে ছাত্র-ছাত্রীদের ঝুঁকি নিয়ে পড়ালেখা করতে হচ্ছে।