মেইন ম্যেনু

উচ্চ রক্তচাপ কাদের বেশি হয়?

উচ্চ রক্তচাপকে নীরব ঘাতক বলা হয়। অনেক সময়ই উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণ বোঝা যায় না। তবে এটি ধীরে ধীরে শরীরের ক্ষতি করতে থাকে।

রক্তকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে পৌঁছে দিতে হৃৎপিণ্ড নিয়মিত সংকোচন ও প্রসারণ করে। সংকোচন ও প্রসারণকালে রক্তনালির মধ্য দিয়ে রক্ত যাওয়ার সময় শিরার ভেতরে চাপ প্রয়োগ করে, একে রক্তচাপ বলে। যখন এই চাপ খুব বেড়ে যায় তখন রক্তনালি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপ হৃদরোগ, স্ট্রোক ও কিডনির রোগের ঝুঁকি বাড়ায়।

স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়েব এমডিতে প্রকাশিত হয়েছে উচ্চ রক্তচাপ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন।

উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কাদের বেশি 
সাধারণত ৪৫ বছরের ওপরের নারী ও পুরষের উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি থাকে। অনেক নারীর ৬৫ বছরে গিয়ে উচ্চ রক্তচাপ হয়। যদি পরিবারে কারো উচ্চ রক্তচাপ বা ডায়াবেটিস থাকে তাহলে সেই ব্যক্তির উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি থাকে। ৬০ ভাগ ডায়াবেটিস রোগীর উচ্চ রক্তচাপ থাকে। তবে বর্তমানে তরুণদের মধ্যেও উচ্চ রক্তচাপ হতে দেখা যায়।

শরীরে বছরের পর বছর উচ্চ রক্তচাপ থাকলেও অনেক সময় এটি বোঝা যায় না। এটি ধীরে ধীরে হৃদপিণ্ড, ফুসফুস, রক্তনালি, মস্তিষ্ক ও কিডনির ক্ষতি করে। সারা বিশ্বেই এটি হার্ট অ্যাটাক ও  স্ট্রোকের ঝুঁকির অন্যতম কারণ।

উচ্চ রক্তচাপের কারণ
সাধারণ রক্তচাপ ১২০/৮০ মিলিমিটার মার্কারির সঙ্গে ১০ বেশি হতে পারে। এর বেশি হলে উচ্চ রক্তচাপ হয়।  অধিকাংশ ক্ষেত্রে উচ্চ রক্তচাপের কারণ জানা যায় না। মাঝে মাঝে কিডনির রোগের কারণে উচ্চ রক্তচাপ হয়।

প্রি হাইপার টেনশন : ঝুঁকির কারণ 
প্রি হাইপার টেনশন বা উচ্চ রক্তচাপের আগের অবস্থা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। সাধারণত সিস্টোলিকের ক্ষেত্রে ১২০ থেকে ১৩৯ এবং ডায়াস্টোলিকের ক্ষেত্রে ৮০ থেকে ৮৯ থাকলে একে প্রি হাইপার টেনশন বলা হয়। এটি অত্যন্ত ঝুঁকির কারণ। এ রকম হলেও চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।