মেইন ম্যেনু

উজ্জ্বল দীপ্তিময় ত্বকের জন্য খান এই খাবারগুলো

আপনি কি উজ্জ্বল ও দীপ্তিময় ত্বকের রহস্য জানতে চান? তাহলে আপনার রান্নাঘরেই আছে এর সমাধান। ত্বকের চমৎকার দ্যুতির জন্য ক্রিম বা লোশন ব্যবহার যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি আপনি কী খাচ্ছেন সেটাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অন্য কিছুর চেয়ে নির্দিষ্ট পুষ্টি উপাদান গ্রহণ আপনার মুখের ত্বককে রক্ষা করতে সাহায্য করবে বেশি। মিশিগানের ট্রয় ভিত্তিক প্লাস্টিক সার্জন ও এমডি অ্যান্থনি ইয়ন বলেন, “তারুণ্যদীপ্ত উজ্জ্বল ত্বক জন্য অ্যান্টিওক্সিডেন্ট অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অকালে বয়স বৃদ্ধিকারী ফ্রি রেডিকেলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে তারা”। ভিটামিন এ, লাইকোপেন ও ফাইবার ত্বকের রুপ লাবণ্য ধরে রাখার জন্য গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে। সৌভাগ্যক্রমে খুব সহজেই এই উপাদানগুলো পাওয়া সম্ভব খাদ্য থেকে। চলুন তাহলে জেনে নেই সেই খাবারগুলো সম্পর্কে যা ভেতর থেকে সৌন্দর্য বিকাশে সাহায্য করে।

১। গ্রিন টি
গ্রিন টি এর পলিফেনল অনেক শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। পলিফেনল গ্রহণ বৃদ্ধি করার জন্য সকালের চা বা কফির পরিবর্তে গ্রিনটি পান করুন।

২। শশা
অন্য যেকোন সবজির চেয়ে বেশি প্রায় ৯৬% পানি থাকে শশাতে। তাই শশা আপনাকে হাইড্রেটেড রাখতে সাহায্য করে চমৎকার ভাবে। জসি মেরান কসমেটিক্সের প্রতিষ্ঠাতা জসি মেরান বলেন, আমি সবসময় আমার সাথে শশার স্লাইস রাখি, যখনই শুষ্ক অনুভূত হয় তখনই যেন খেতে পারি। তারা আমার ত্বককে আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে তাই আমার ত্বক সুস্থ ও হাইড্রেটেড থাকে।

২।কাঠবাদাম
ভিটামিন ই তে পরিপূর্ণ কাঠবাদাম যা সূর্য রশ্মির ক্ষতি থেকে ত্বককে রক্ষা করে। স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখতে সাহায্য করে কাঠবাদাম। যারা স্বাস্থ্যোজ্জল ত্বকের পাশাপাশি ওজন কমাতে চান তারা নিয়মিত কাঠবাদাম খান।

৩। টমাটো
লাইকোপেন নামক যৌগের কারণেই টমাটোর উজ্জ্বল বর্ণ যা একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। লাইকোপেন ত্বকের বয়স বৃদ্ধিকারী অতিবেগুনী রশ্মির ফ্রি র‍্যাডিকেল কে দূর করে। ফল ও সবজিতে যে উচ্চমাত্রার ক্যারোটিনয়েড থাকে তা আমাদের ত্বককে স্বাস্থ্যোজ্জল করে।

৪। তরমুজ
শরীরকে জলপূর্ণ রাখতে সাহায্য করে তরমুজ। এছাড়াও তরমুজে লাইকোপেন থাকে।

৫। মিষ্টিআলু
ক্যারোটিনয়েড ও ভিটামিন সি তে পরিপূর্ণ মিষ্টিআলু যা কোলাজেনের উৎপাদন বৃদ্ধি করে। কোলাজেন ত্বকের শক্তি, দৃঢ়তা ও নমনীয়তা নিয়ন্ত্রণ করে।

৬। ক্যাপসিকাম অ মরিচ
ক্যাপসিকামে কমলার চেয়ে বেশি ভিটামিন সি থাকে এবং অন্য অ্যান্টিওক্সিডেন্ট ও থাকে। ঝাঁজালো মরিচ কেপ্সাইসিন এ পরিপূর্ণ থাকে। এই যৌগটি রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে এবং ত্বক থেকে টক্সিন বাহির করে দিতে সাহায্য করে।

৭। শাক
সবুজ শাক বিশেষ করে পালং শাক ফোলেট সমৃদ্ধ। এই বি ভিটামিন ডিএনএ কে মেরামত করে এবং স্কিন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। পালংশাক, পাতাকপি, ব্রোকলি, শালগম ও শতমূলী ভিটামিন এ, আয়রন ও ভিটামিন কে সমৃদ্ধ। বলিরেখা ও মৃত চামড়া দূর করতে সাহায্য করে এই উপাদানগুলো।

৮। গাজর
গাজর ভিটামিন এ তে পরিপূর্ণ। ত্বকের ক্যান্সার ও কোষের অতিবৃদ্ধি রোধ করে ভিটামিন এ যা ত্বকের ছিদ্রগুলোকে বন্ধ করে দিতে পারে।

তাছারাও ওলিভ ওয়েল, সানফ্লাওয়ার ওয়েল, নারিকেল তেল, স্ট্রবেরি, তিলের তেল, ডার্ক চকলেট, আস্ত শস্যদানা, আনারস, মিষ্টিকুমড়ার বীচি, আপেল, ডিম, লেবু ও প্রোটিন পর্যাপ্ত পরিমাণে গ্রহণ করলে আপনার ত্বক সুস্থ থাকার পাশাপাশি উজ্জ্বল ও দীপ্তিময় হবে।



« (পূর্বের সংবাদ)