মেইন ম্যেনু

এই গরমে নিজেকে ঠান্ডা রাখার ঘরোয়া উপায়

ক্রমেই চড়ছে পারদ। তাপপ্রবাহের সতর্কতা জারি হচ্ছে জেলায় জেলায়। এমন অবস্থায় শরীর ঠান্ডা না রাখলে বাইরে বেরিয়ে গরমে আচমকা অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন। শরীর ঠান্ডা রাখার জন্য ঘরোয়া কিছু উপায় এবং পানীয়ের খোঁজ রইল।

১. পেঁয়াজের রস নিয়ে কানের পিছনে এবং বুকের উপরে লাগালে আপনার শরীরের তাপমাত্রা কমবে। শুধু তাই নয়, জিরে এবং মধুর সঙ্গে একটু রোস্টেড পেঁয়াজও আপনার শরীর ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করবে। তাছাড়া, গরমে কাঁচা পেঁয়াজ এমনিতেই উপকারী।

২. তেঁতুলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, মিনারেল এবং ইলেক্ট্রোলাইটস থাকে। ফুটন্ত গরম জলের মধ্যে তেঁতুল ফেলে রস মতো তৈরি করুন। এর পরে জলটা ছেঁকে নিয়ে একটু চিনি মিশিয়ে খেলে আপনার শরীর ঠান্ডা হবে।

৩. আম-পান্না। যেমন খেতে সুস্বাদু, তেমনই শরীর ঠান্ডা রাখতে এর জুড়ি মেলা ভার। কারণ, এর মধ্যে কাঁচা আম থাকে যা ইলেক্ট্রোলাইট হিসেবে কাজ করে। তাছাড়াও, আম-পান্নায় বিট নুন, জিরের মতো বিভিন্ন মশলা এবং উপাদান থাকে যা শরীর ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে। গরমে দিনে দুই থেকে তিনবার আম-পান্না খেতেই পারেন।

৪. গরমে ঘামাচি এবং গায়ে জ্বলুনি অত্যন্ত সাধারণ একটা সমস্যা। ধনে পাতা বা পুদিনা পাতার রস সামান্য চিনি দিয়ে মিশিয়ে খেলে শরীর ঠান্ডা হওয়া ছা়ড়াও ত্বকের চুলকানি, জ্বলুনি থেকে আরাম পাওয়া যাবে।

৫. অ্যালোভেরা জুস- প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং মিনেরেলে ঠাসা। বাইরের পরিবেশে পরিবর্তনের সঙ্গে শরীরের মোকাবিলা করার ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। গরমে ঘামাচি এবং ত্বকের জ্বলুনি থেকে মুক্তি পেতে অ্যালোভেরা জেলও ব্যবহার করেত পারেন।

৬. চন্দনকাঠের গুঁড়ো জলের সঙ্গে মিশিয়ে কপালে এবং বুকের উপরে লাগালে শরীর ঠান্ডা হবে। নাহলে স্যান্ডেলউড অয়েল কপালে মালিশ করলেও আরাম পাবেন। ত্বকের জ্বলুনি কমাতেও এটি উপকারী।