মেইন ম্যেনু

এই চিনা মহিলারা জীবনে একবার চুল কাটেন

নদীর জলে চুলের ময়লা ধুয়ে নেন তাঁরা। জল দিয়েই নিয়মিত চলে চুলের পরিচর্যা। ইতিমধ্যে সাত ফুট লম্বা চুলের রেকর্ড করেছেন এক মহিলা।এ ছাড়া ৬০ জনের চুল প্রায় ৩ ফুট পর্যন্ত লম্বা। এই চুলের দৈর্ঘ্য নিয়ে দৈনন্দিন কাজকর্মও করে থাকেন তাঁরা।

এঁদের দেখে মনে হতেই পারে যে, ‘চুল দিয়ে যায় চেনা’। প্রায় দু’হাজার বছরের নিয়ম আজও চলে আসছে চিনের গুইয়াংসি প্রদেশের হুয়ানগ্লো গ্রামে। এ গ্রামের ইয়াও জনগোষ্ঠীর সব মহিলা জীবনে একবারই চুল কাটেন। তাঁদের নিয়মে বলা আছে, ১৮ বছর বয়সে একবারই চুল কাটা যাবে। তবে তা জীবনে ওই একবারই। ফলে তাঁদের চুলও বেড়ে চলে আপন খেয়ালে।

পাশাপাশি এ-ও ভারি অদ্ভুত বিষয়, তাদের চুলের যত্ন করতে শ্যাম্পু, তেল, কন্ডিশনার কোনও কিছুই দরকার হয় না। তা হলে তাঁরা চুলের য্ত্ন নেন কীভাবে? নদীর জলে চুলের ময়লা ধুয়ে নেন তাঁরা। জল দিয়েই নিয়মিত চলে চুলের পরিচর্যা। ইতিমধ্যে সাত ফুট লম্বা

চুলের রেকর্ড করেছেন এক মহিলা। এ ছাড়া ৬০ জনের চুল প্রায় ৩ ফুট পর্যন্ত লম্বা। এই চুলের দৈর্ঘ্য নিয়ে দৈনন্দিন কাজকর্মও করে থাকেন তাঁরা।

আজ চারিদিকে যখন চুল নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে, নিত্যনতুন স্টাইল, কালার, কাটিং, স্ট্রেটনিং, কার্লিং—তখন এই মহিলারা চুল নিয়ে চুলোচুলি করতে নারাজ। ভাবা যায়!