মেইন ম্যেনু

এই ডাক্তার প্রাণঘাতী ওষুধ দিয়ে ধারাবাহিকভাবে খুন করতেন রুগিদের!

এক অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীকে অপহরণ এবং খুনের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হলো ভারতের মহারাষ্ট্রের এক ডাক্তারকে। তবে গ্রেপ্তারের পর সেই ডাক্তার স্কীকার করেছে আরো ৬ জনকে খুন করেছে সে। প্রাণঘাতী ওষুধ ব্যবহার করে এই খুনগুলি করা হয়েছে বলেই জানিয়েছে সেই ডাক্তার।

সাতারার ওয়াই পুলিশ স্টেশনের ইন্সপেক্টর পদ্মাকর ঘানওয়াট জানিয়েছেন অভিযুক্ত সন্তোষ পোল-কে শনিবার গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ডা. ডেথ নামে পরিচিত এই ব্যক্তি স্বীকার করে নিয়েছে এখনও পর্যন্ত সে পাঁচ জন নারী এবং এক জন পুরুষ খুন করেছ। মহাবালেশ্বর এবং পঞ্চগনির মধ্যবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত ছোট্ট শহর ওয়াই।

সন্তোষ পোল-এর অপরাধ সামনে আসে যখন ৪৯ বছর বয়সী মঙ্গল জেধে (মহারাষ্ট্র পূর্ব প্রাথমিক শিক্ষিকা সেবিকা সংঙ্ঘের প্রেসিডেন্ট) হঠাত্‍ করেই বেপাত্তা হয়ে যান।

ওয়াই থেকে তার পুনে যাওয়ার কথা ছিল মেয়ের প্রসবের জন্যে। কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ে তিনি পুনে না পৌঁছানোয় শুরু হয় খোঁজ খবর। জানা যায় পুনে যাওয়ার আগে তার সঙ্গে ওয়াইয়ে সন্তোষ পোলের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। তিনি পোলকে ভয় দেখান যে তার সমস্ত কুকর্মের কথা তিনি ফাঁস করে দেবেন। তাতেই ঘনিয়ে আসে বিপদ। তার ক্লিনিকে কর্মরত নার্স জ্যোতি মান্দ্রের সাহায্য নিয়ে পোল অপহরণ করে মঙ্গল জেধে-কে। ওয়াই থেকে ১৩ কিমি দূরে পোল-এর বাগানবাড়িতে ধরে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। পরের দিন প্রাণঘাতী ওষুধ দিয়ে খুন করা হয় মঙ্গলকে। তার দেহ কবর দেয়া হয় বাগানবাড়ির পিছন দিকে।

মধ্য মুম্বাইয়ের দাদর থেকে গ্রেপ্তার করা হয় সন্তোষ পোলকে। এক সপ্তাহ পুলিশ হেফাজতে রাখা হবে তাকে। জেরায় সন্তোষ জানিয়েছে, একইসঙ্গে জেধে এবং মান্দ্রের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক ছিল তার। মান্দ্রের সঙ্গে সম্পর্কের কথা জানতে পেরে জেধে তাদের হুমকি দেন। পথের কাঁটা দূর করতেই তড়িঘড়ি সরিয়ে ফেলা হয় মঙ্গল জেধেকে। জেধে ছাড়া আরো চারটি দেহ উদ্ধার করা হয়েছে সন্তোষের বাগানবাড়ি থেকে।-টাইমস অফ ইন্ডিয়া