মেইন ম্যেনু

এই দুইটি কাজ হতে পারে আপনার টাক পড়ার কারণ

অনেকের পুরুষেরই অকালে টাক পড়ে যায়। এর জন্য ধূমপান, অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, বংশগতি ইত্যাদি হতে পারে দায়ী। কিন্তু আরও দুইটি কারণ দায়ী হতে পারে মাথার সামনের দিকে এবং কপালের দুপাশ থেকে চুল কমে যাবার জন্য। বিজনেস ইনসাইডারকে হেয়ার ট্রান্সপ্লান্ট সার্জন উইলিয়াম ডি ইয়েটস, এম ডি জানান এমন কাজগুলোর কথা।

এর প্রথম কারণটি হলো টাইট হ্যাট পরা। বিশেষ করে শীতকালের এই সময়ে মাথা ও কান গরম রাখতে অনেকেই গরম উলের টুপি পরে থাকেন দিন-রাত। এসব টুপি চুলের ওপর চাপ তৈরি করে, চুল কমে যেতে থাকে। ফলে দেখা দেয় ট্র্যাকশন অ্যালোপেশিয়া নামের এক ধরণের চুল পড়ে যাওয়ার ঘটনা।

চুলের ফলিকলে অতিরিক্ত স্ট্রেস তৈরি করে এমন কোন কিছুই হতে পারে টাক পড়ে যাবার সম্ভাব্য কারণ। ইদানিং পশ্চিমা দেশে “ম্যান-বান” নামে ছেলেদের যে খোঁপা করার ট্রেন্ড চলছে সেটাও একইভাবে চুল কমে যাবার কারণ হতে পারে। আমাদের দেশে ব্যাপারটা এমন ট্রেন্ডি না হলেও মাঝে মাঝে ছেলেদের চুল বড় রাখা এবং সেই চুল টাইট করে বেঁধে রাখার প্রবণতা দেখা যায়। বেশিদিন ধরে এমন চুল বেঁধে রাখলে এই কাজটি মাথার সামনের দিকে এবং কপালের পাশ দিয়ে চুল কমে যাবার কারণ হতে পারে। ২-৩ বছরের মাঝেই দেখা যেতে পারে এমন চুল কমে যাওয়া। বিজনেস ইনসাইডারের ভিডিওটি দেখে নিতে পারেন এখানে।

তবে Live Science এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়, হ্যাট পড়ার অভ্যাস থাকলেই যে চুল কমে যাবে এমনটা নয়। বরং কারও যদি জিনগতভাবে মাথার চুল কমে যাওয়া বা টাক হয়ে যাওয়ার প্রবণতা থাকে, তবে টাইট হ্যাট পরে থাকার কারণে তিনি টাক হয়ে যেতে পারেন দ্রুত। কারণ হ্যাট পরলে চুলের ফলিকলে রক্ত এবং অক্সিজেন চলাচল ব্যহত হতে পারে। বয়স, হরমোনগত কারণ বা বংশগতি মূলত চুল কমে যাবার পেছনে দায়ী। যাদের চুল ইতোমধ্যেই কমা শুরু করেছে, তাদের জন্য টুপি পরাটা বেশি সমস্যার তৈরি করতে পারে। বারবার টুপি পরা ও খোলার মাধ্যমে চুলে টান লেগে চুল আরও কমতে পারে। এছাড়াও চুলের আগা ভেঙ্গে যাওয়াটাও চুল কমে যাবার কারণ হতে পারে।