মেইন ম্যেনু

এই লক্ষণ গুলো আপনার মাঝে থাকলে আপনি বুদ্ধিমান!

মানুষের বুদ্ধিমত্তা নিজে থেকে নির্ণয় করা যায় না। এমনকি অন্যরা আপনাকে যদি বুদ্ধিমান বলে মনে নাও করে তার পরেও আপনার কিছু লক্ষণ দেখে বুদ্ধিমত্তা বিষয়ে ধারণা পাওয়া যেতে পারে। এ লেখায় দেওয়া হলো ১৬টি লক্ষণ, যা আপনার বুদ্ধিমত্তা প্রকাশ করে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।

১. সঙ্গীত শেখা: সঙ্গীতের সঙ্গে বুদ্ধিমত্তার সম্পর্ক পাওয়া গেছে বহু গবেষণাতেই। গবেষকরা জানিয়েছেন আপনি যদি সঙ্গীত অনুশীলন করেন তাহলে আপনার বুদ্ধিমত্তা বেশি হবে।

২. বড় ভাই: ছোট ভাইদের সামনে বড় ভাইকে নানা অনুকরণীয় উদাহরণ সৃষ্টি করতে হয়। পরিবারের বড় ভাই প্রায়ই অন্য ভাইদের তুলনায় বুদ্ধিমান হয়ে থাকে।

৩. হালকা-পাতলা: হালকা-পাতলা দেহের অধিকারীরা অন্যদের তুলনায় বুদ্ধিমান হয়ে থাকে। বিভিন্ন গবেষণায় বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে।

৪. বিড়াল পোষা: ২০১৪ সালে এক গবেষণায় দেখা গেছে যারা কুকুর পালন করে তাদের তুলনায় বিড়াল পালনকারীরা বুদ্ধিমান হয়ে থাকে।

৫. মায়ের দুধ খাওয়া: যে মায়েরা সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়ান তাদের সন্তানের বুদ্ধি ভালো হয়। তবে অন্য খাবার খেয়ে থাকলে সে তুলনায় বুদ্ধি কম হতে পারে।

৬. বিনোদনমূলক ওষুধ: ২০১২ সালে এক গবেষণায় দেখা যায়, যারা বিনোদনমূলক নানা ওষুধ সেবন করেন তাদের আইকিউ বেশি থাকে।

৭. বাঁহাতি: ডান হাত যারা ব্যবহার করেন তাদের তুলনায় বাঁ হাত ব্যবহারকারীরা বুদ্ধিমান হয়।

৮. লম্বা: খাটো মানুষদের তুলনায় লম্বাদের আইকিউ বেশি হয়ে থাকে। ২০০৮ সালের এক গবেষণায় বিষয়টি প্রমাণিত হয়।

৯. তাড়াতাড়ি পড়া: ২০১২ সালে গবেষকরা দুই হাজার জোড়া একই ধরনের যমজ সন্তানের ওপর গবেষণা করেন। এতে তারা উভয়ের মাঝে যারা তাড়াতাড়ি পড়া শিখেছে তাদের মধ্যে বেশি বুদ্ধিমান হয়ে ওঠার প্রবণতা দেখতে পান।

১০. ভীত: এক গবেষণায় দেখা যায় যারা নিয়মিত নানা কারণে ভয় পায় তাদের বুদ্ধি বেশি হয়।

১১. মজার: বুদ্ধিমান মানুষের রসবোধ ভালো হয়। এক গবেষণায় দেখা যায়, যারা রসিক মানুষ এবং নানাভাবে অন্যদের হাসাতে পারে তাদের বুদ্ধিমত্তা অন্যদের তুলনায় বেশি।

১২. কৌতুহলী: কৌতুহলী মানুষ অন্যদের তুলনায় বেশি বুদ্ধিমান হয়ে থাকে। বিভিন্ন গবেষণাতেও বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে।

১৩. অগোছালো: অগোছালো মানুষ বনাম গোছালো মানুষের মাঝে এক তুলনামূলক গবেষণায় দেখা যায়, অগোছালো মানুষই বেশি বুদ্ধিমান।

১৪. প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত যৌনতা নয়: গবেষণায় দেখা গেছে, যাদের আইকিউ স্কোর ভালো তারা সাধারণত স্কুলে থাকতে কিংবা অল্পবয়সে যৌনতায় লিপ্ত হয় না। অনেক বয়স পর্যন্ত তারা তাদের কৌমার্য ধরে রাখে।

১৫. রাতজাগা পাখি: রাতে যারা জেগে থাকেন তাদের বুদ্ধি অন্যদের তুলনায় বেশি হয় বলেই উঠে এসেছে গবেষণায়। এতে জানা গেছে, সকালে যারা ঘুম থেকে ওঠে তাদের তুলনায় ‘রাতজাগা পাখিরা’ বুদ্ধিমান হয়ে থাকে।

১৬. প্রায়ই কঠোর পরিশ্রমী নয়: বুদ্ধিমান মানুষ সর্বদা কঠোর পরিশ্রমী হয় না। গবেষকরা জানিয়েছেন, আলসে মানুষ মাত্রই যে, বুদ্ধিমান তা নয়। তবে বহু আলসে মানুষই বুদ্ধিমান। কঠোর পরিশ্রমের ক্ষেত্রে তারা সর্বদা যে সামনে এগিয়ে যায়, এমনটা নয়।