মেইন ম্যেনু

একটিই ব্রাশ দিয়ে দাঁত মাজে ৪৯ প্রতিবন্ধী অনাথ শিশু!

কাহিনিটা অনেক দুঃখের, হতাশার। একটুকরো পৃথিবীতে সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার অধিকার ছিনিয়ে নেয়ার এক করুণ অথচ বাস্তব কাহিনী। গল্পের ছলে যা শুনিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্টের সাবেক প্রধান বিচারপতি এবং জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারপার্সন এইচ এল দাত্তু নিজেই। প্রতিবন্ধী শিশুর জন্য এক সরকারি হোমে তিক্ত অভিজ্ঞতার সাক্ষী তিনি নিজেই। যেখানে মাত্র একটি ব্রাশেই ৪৯টি প্রতিবন্ধী শিশুকে ব্রাশ করতে হচ্ছে! একটি টুথপেস্ট থেকে।

ঘটনাটি ২ বছর আগের। সরকারি এই হোমটিতে  গিয়ে প্রতিবন্ধী শিশুদের দুর্দশার সাক্ষী হয়েছিলেন বর্তমানে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারপার্সন। এক সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে হোমের প্রতিবন্ধী শিশুদের দুর্দশার কাহিনী জানিয়েছেন নিজেই।

তার বক্তব্য অনুযায়ী, সেই সরকারি হোমটিতে একটি টুথব্রাশেই দাঁত মাজছে ৪৯টি শিশু। যাদের আবার একটিই টুথপেস্ট। বিষয়টি অবাক করেছিল সাবেক এই প্রধান বিচারপতিকেও। তার মতে, প্রতিবন্ধী ও বয়স্কদের জন্য সরকারি ফান্ডের কোনো অভাব নেই। আসলে ঘটনা হল, এক্ষেত্রে ছিঁচকে চোরের খপ্পরে পড়ে সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয় শিশু ও বয়স্করা। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারপার্সন হিসেবে তিনি তাদের যোগ্য অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার চেষ্টাও করছেন বলে জানা গেছে।

এনিয়ে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন তাদের প্রতিনিধিদের সরকারি হোমগুলি ঘুরে দেখার নির্দেশ দিয়েছে। হোমের আবাসিক শিশু ও বয়স্করা তাদের প্রাথমিক সুবিধা পাচ্ছে কি না, তা নিয়ে একটি রিপোর্ট জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। হোমের অসহায় আবাসিকদের প্রকৃত সুযোগ সুবিধা দেয়ার যথার্থ চেষ্টাও চলছে।-ইন্দু ইন্ডিয়া