মেইন ম্যেনু

একটেবিলে বসে দেশ রক্ষার আহ্বান ইমরান এইচ সরকারের

কালক্ষেপণ না করে দেশের সকল রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও গণতান্ত্রিক সংগঠনকে একটেবিলে বসে এক লাইনে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশকে যে কোনো মূলে রক্ষা করার আহ্বান জানিয়েছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার।

বুধবার বিকেল শাহাবাগের গণজাগরণ মঞ্চের আয়োজনে দেশব্যাপী জঙ্গি ও সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে এক বিক্ষাভ মিছিল ও সমাবেশে তিনি একথা বলেন।

ইমরান এইচ সরকার বলেন, ‘ক্ষমতার মোহে আমরা একে অপরকে দোষারূপ করছি, কাঁদা ছোড়াছুড়ি করছি। ষড়যন্ত্রকারীরা নতুন করে সুযোগ পেলে আবার বাংলাদেশ রাষ্ট্রের উপর ঝাঁপিয়ে পড়বে। আমরা যদি এখনও মনে করি নিরাপদে আছি, সেটা হবে আমাদের জন্য সবচেয়ে বড় ভুল।’

তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদী গোষ্ঠীকে দানবে পরিনত করেছে আমাদের রাষ্ট্র, শাসন ব্যবস্থা ও রাজনৈতিক দলগুলো। যে কারণে আজকে তারা প্রকাশ্যে যুদ্ধ ঘোষণা করতে সাহস পাচ্ছে। আমরা মুখে মুক্তিযুদ্ধের কথা বললেও চেতনার মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নেই। তাই জঙ্গিবাদীরা এতো শক্তি পাচ্ছে। সারা বিশ্বের মানুষ বাংলাদেশকে আজ ইরাক, সিরিয়ার সাথে তুলনা করছে।’

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশকে গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে ইমরান আরো বলেন, ‘আসুন আগামীর নতুন বাংলাদেশ গড়ার জন্য আমরা সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধ হই। নুতনভাবে শপথ গ্রহণ করি। সন্ত্রাসবাদীদের চিহ্ণিত করে তাদের সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন করি।’

এসময় ইমরান এইচ সরকার গণজাগরণ মঞ্চের পক্ষ থেকে দেশের আনাচে-কানাচে সকল স্কুল, কলেজ, মাদরাসায় জঙ্গিবাদ বিরোধী স্কোয়ার্ড গঠনের ঘোষণা দিয়ে বলেন, ‘সরকারের পাশাপাশি জনগণও রাজপথে থাকবে।’

তিনি আগামী শুক্রবার গণজাগরণ মঞ্চের পূর্ব নির্ধারিত গণমিছিলের কর্মসূচিতে উপস্থিত থাকার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান।

বিক্ষোভ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক জয়ন্ত আচার্য, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক শম্পা বসু, কলামিস্ট মমতাজ লতিফ, রাশেদ রহমান প্রমুখ।