মেইন ম্যেনু

একসঙ্গে এসএসসি পাস করা মা-ছেলের বাড়িতে পলান সরকার

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় এক সঙ্গে এসএসসি পাস করা সেই মা-ছেলের বাড়িতে এসে অভিনন্দন জানালেন একুশে পদকপ্রাপ্ত সাদা মনের মানুষ বইপ্রেমী পলান সরকার। আজ শুক্রবার পলান সরকার রাজশাহীর বাঘার বাউসা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে বাগাতিপাড়ার গালিমপুরে পৌঁছে মা ও ছেলেকে অভিনন্দন জানান।

সে সময় মা মলি রাণী কুন্ডু ও ছেলে মৃন্ময় কুমার কুন্ডুকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান এবং মিষ্টি খাইয়ে দেন। এ সময় উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা খাদেমুল ইসলামের সৌজন্যে মা-ছেলেকে দুটি অভিধান বই উপহার হিসেবে তুলে দেন বইপ্রেমী পলান সরকার।

পলান সরকার বলেন, যে চেতনা নিয়ে তিনি ফেরি করে বাড়িতে বাড়িতে বই পড়তে দিতেন, সেই স্বপ্নের বাস্তবতা মলি রাণীর মধ্যে পেয়েছেন।

সে কারণে গণমাধ্যমে মলি রাণীর সাফল্যের খবর জানতে পেরে অভিনন্দন জানাতে তাদের বাড়িতে ছুটে এসেছেন তিনি। সুশিক্ষায় শিক্ষিত হতে পিছিয়ে থাকা নারীদের সাহসিকতার সাথে এগিয়ে আসার আহ্বানও জানান তিনি। অভিনন্দনকালে পলান সরকারের সাথে সেখানে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের বাগাতিপাড়া উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম মাসুম, বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের ইলা মিত্র অঞ্চলের সমন্বয়কারী মসগুল হোসেন ইতি, পলান সরকারের ছেলে শিক্ষক হায়দার আলী উপস্থিত ছিলেন।

ছেলের সঙ্গে ৩৫ বছর বয়সে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ ৪ দশমিক ৫৪ পেয়ে পাস করেন মলি রাণী কুন্ডু এবং ছেলে মৃন্ময় কুমার কুন্ডু পান জিপিএ ৪ দশমিক ৪৩।

মা মলি বাগাতিপাড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ড্রেস মেকিং এন্ড টেইলারিং ট্রেডের এবং ছেলে মৃন্ময় বাগাতিপাড়া মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের বিল্ডিং মেইনটেনেন্স ট্রেডের শিক্ষার্থী ছিলেন।

মলি রাণী নঁওগা জেলার মান্দা উপজেলার প্রসাদপুরের অসিত কুন্ডু’র মেয়ে এবং বাগাতিপাড়ার গালিমপুরের মিষ্টি ব্যবসায়ী দেবব্রত কুমার কুন্ডু মিন্টুর স্ত্রী।






মন্তব্য চালু নেই