মেইন ম্যেনু

এক্সিডেন্টে মায়ের মৃত্যু, দুই সদ্যোজাত কুকুরছানাকে আশ্রয় দিলেন পুরমাতা

এমনও হয়! পথের ধারে জন্ম। ভূমিষ্ঠ হওয়ার পাঁচদিনের মাথায় ক্যাবের ধাক্কায় মৃত্যু হয় মায়ের। মা হারানো দুই সদ্যোজাত কুকুরছানাকে আশ্রয় দিলেন দমদম তিন নম্বর ওয়ার্ডের পুরমাতা পর্ণা দাস। চিকিৎসক শক্ত খাবার খাওয়ানোর অনুমতি দিলে দু’জনের মুখেভাতের অনুষ্ঠানও করবেন তিনি।

মুখেভাত হবে? ওয়ার্ড কার্যালয়ে আগন্তুকের প্রশ্নের প্রেক্ষিতে পর্ণা বলেন, ‘‘হবে। ঘটা করেই হবে।’’

পুরমাতার কার্যালয়ই এখন দুই সদ্যোজাতের বাড়ি হয়ে উঠেছে। পরিবার পেয়েছে ওই দুই কুকুরছানা। তৃণমূল কাউন্সিলরের কথায়, ‘‘আমি একা কিছু নয়। আমরা সকলে মিলে ওদের দেখাশোনা করছি।’’ চিকিৎসক পাঁচ রকমের ওষুধ দিয়েছেন। কোনওটা কৃমির তো কোনওটা ভিটামিন। নিয়ম মেনে সেসব খাওয়ানো হচ্ছে। এই গুরুদায়িত্ব পালনে পরিবারের যে সদস্যের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি সেই সুমন্ত ঘোষ বলেন, ‘‘এদের যত্ন করার মতো কেউ নেই। তাই কাজটা করতে ভালবাসি।’’

গত ৮ সেপ্টেম্বর ক্যাবের ধাক্কায় পাড়ার বাসিন্দাদের আদরের কালীর মৃত্যু হয়েছিল। প্রথমে বিরাটির কলাবাগানে সারমেয়দের পরিচর্যার কেন্দ্রে যোগাযোগ করেছিলেন পর্ণা। কিন্তু দুই সদ্যোজাতকে রাখতে রাজি হয়নি তারা। ঘটনাচক্রে, জানুয়ারি মাসে দুই কুকুরছানার বাবা শাকালুও দুর্ঘটনার কবলে পড়েছিল। তবে তাকে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরিয়ে এনেছিলেন পর্ণার সহযোগীরা। -এবেলা