মেইন ম্যেনু

এক আজব পেশা, পুরুষকে শায়েস্তা করে লাখপতি যুবতী!

কতজন কত পেশাই না জড়িত। একেকজন একেক ধরনের পেশা বেছে নেন। তবে কখনো কি শুনেছেন যে, মানুষকে বশ করে শিক্ষা দেয়ার পেশার কথা?

হ্যাঁ, এমন কাণ্ডই ঘটান পোর্টল্যান্ডের সিয়েরা লিঞ্চ নামে এক যুবতী। তার পেশার নাম ‘humiliatrix’ মানে মানুষকে বশ করে শিক্ষা দেয়া। এ পেশায় লিপ্ত হয়ে এখন তিনি লাখপতি।

এ আজব পেশা চালিয়ে নিজের পড়াশোনার খরচ চালিয়ে বড় শহরে সিয়েরা দুটি বাড়ি ও গাড়ির মালিক। ২৯ বছরের এই যুবতীর কথা জেনে নিশ্চয় কৌতূহল মনে হচ্ছে!

‘humiliatrix’কর্মটি সম্পর্কে সিয়েরা নিজেই জানিয়েছেন, তার কাজের জন্য বাড়িতে একটা ল্যাপটপ, ওয়েব ক্যাম আর নেট কানেকশান প্রয়োজন। অনলাইনে বদমাশ ছেলেদের শায়েস্তা করতে তিনি এ কাজটা শুরু করেছিলেন। কিন্তু ধীরে ধীরে তিনি বুঝতে পারেন যে, এটা থেকে মোটা টাকা রোজগার করা সম্ভব।

সোশ্যাল মিডিয়ায় তার অ্যাকাউন্ট যত জনপ্রিয় হয়েছে, মোটা অঙ্কের বিজ্ঞাপনও পেয়েছেন তিনি। সিয়েরা বলেন, তার ইনবক্সে চ্যাট ও দেখা করার নানা অনুরোধ পাঠান পুরুষরা।

এদের মধ্যে যারা নারীদের অপমান করেন, নারীদের শুধু পণ্য মনে করে তাদেরই অপমান করেন সিয়েরা। চ্যাট করার জন্য মিনিটে ১০ ডলার নেন তিনি।

ওয়েবক্যামের মাধ্যমে চলে কথাবার্তা। তার ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিস বিক্রি করেও মোটা টাকা রোজগার করেন তিনি। সিয়েরা তার আজব পেশা নিয়ে গর্বিত। তিনি বলেন, ব্যাটাদের শায়েস্তা করতে আমার দারুণ লাগে।

সিয়েরার পেশা নিয়ে তার বাবা-মাও গর্বিত বলে জানিয়েছেন তিনি। তার বাবা-মা তাকে উৎসাহ দিয়ে থাকেন, জানান সিয়েরা।