মেইন ম্যেনু

এক কুচি আদা বদলে দিতে পারে জীবন, কিন্তু কীভাবে?

আদা যে শুধুমাত্র রান্নার স্বাদ ও গন্ধ বাড়ায় তা নয়। আদা একটি গুরুত্বপূর্ণ ওষধি। যা শরীরের অনেক সমস্যা দূর করে দেয়।

প্রতিদিনের রান্নায় আদার ব্যবহার বাঙালির ঘরে ঘরে। বেশিরভাগ সুস্বাদু রান্নার জন্য আদা চাই-ই চাই। কিন্তু আদা শুধু খাবারের স্বাদ বাড়ায় না, গন্ধ বাড়ায় না, উপকারও করে। তবে রান্না করা আদার থেকে কাঁচা আদার উপকার অনেক অনেক বেশি। এমনটাই মনে করেন চিকিৎসকরা।
দেখে নেওয়া যাক নিয়মিত আদা খাওয়ার অভ্যাস কী কী শারীরিক সমস্যার সমাধান পাওয়া যায়—

১) বমিভাব বা বমি হচ্ছে? আদা কুচি চিবিয়ে খান অথবা আদার রসের সঙ্গে সামান্য নুন মিশিয়ে পান করুন। তাৎক্ষণিক সমাধান মিলবে।

২) অম্বলের কারণে বুক জ্বলার সমস্যা? ২ কাপ জলে এক টুকরো ছেঁচে গরম করে চায়ের মতো তৈরি করে পান করুন।

৩) দুর্বল লাগছে? কারণ, যাই হোক এক টুকরো আদা খেয়ে নিন। অনেকটা শক্তি পাবেন। পরে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন, জানুন দুর্বলতার কারণ।

৪) আদার রস ব্যথা কমাতেও ওষুধের মতো কাজ করে। যেখানে আঘাত সেখানে লাগাতে পারেন আদার রস। এমনকী আদার রস পান করলেও ব্যাথা কমে।

৫) নিয়মিত আদা খেলে পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা বাড়ে। স্পার্ম কাউন্ট বৃদ্ধি করে আদা।

৬) প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক উপাদানে ভরপুর আদা। তাই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। নিয়মিত আদা খাওয়ার অভ্যাস করলে ছোটখাটো অনেক রোগের হাত থেকেই মুক্তি মেলে।

৭) ক্ষুধামান্দ্যে ভুগছেন? তা হলে চিবিয়ে অথবা রস করে আগে আদা খেয়ে নিন। আধ ঘণ্টার মধ্যেই ক্ষুধামান্দ্য দূর হবে এবং খাবারে রুচি ফিরে আসবে।

৮) আদা হজমের সমস্যায় খুব ভাল কাজ করে। প্রতিদিন সকালে ১ কাপ আদা-চা পান করলে গোটা দিন অম্বল বা হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

৯) গলা খুশখুশ কমাতেও উপকারী আদা। ঠান্ডা লেগে কাশি হলেও আদা গলা স্বাভাবিক রাখতে কাজে লাগে।