মেইন ম্যেনু

এক স্ত্রীর বিরুদ্ধে ২৩ স্বামীর মানববন্ধন !

সই কেমনে ধরিব হিয়া আমার বঁধুয়া আন বাড়ি যায় আমার আঙিনা দিয়া… হতভাগা এমনই তেইশ জন স্বামী নিঃস্ব হয়েছেন সুন্দরী এক নারীর বিবাহের ফাঁদে পরে। অবশেষে মা জোবেদা বেগম ও মেয়ে শরিফা খাতুনের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে অর্থ ও সম্পদ খোয়ানো ২৩ পরিবার মানববন্ধন করেছে তাদের বিরুদ্ধে। এই ২৩ পরিবারের কাউকে না কাউকে বিয়ে করেছিল সুন্দরী নারী শরিফা খাতুন। তবে, ২৪ তম স্বামীকে নিয়ে দিব্যি সুখেই ঘর করছেন শরিফা খাতুন!!

বৃহস্পতিবার বিকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে আধা ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন পালন করে তারা। এ সময় বক্তব্য রাখেন, ফরাজ আলী, বাবু, জামাত আলী, শীষ মোহাম্মদ, মোশাররফ হোসেন, আবদুল্লাহপ্রমুখ।

তাদের অভিযোগ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বারঘোরিয়া লক্ষ্মীপুর-কামারপাড়ার শরিফুল ইসলামের স্ত্রী জোবেদা বেগম তাদের সুন্দরী কন্যা শরিফা খাতুনকে ব্যবহার করে অন্তত ২৪ জন ব্যক্তির সাথে প্রতারণা করে। তাদের প্রধান টার্গেট হয় বিদেশি ও বিত্তশালীরা। প্রথমে তারা তাদের পছন্দের ব্যক্তির সাথে আত্মীয়তা করেন। পরে আরও ঘনিষ্টতা বাড়িয়ে বাসায় ডেকে নিয়ে নিয়ে নানা প্রলোভনে তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। বিয়ে করতে রাজি না হলে ছবি তোলে ও মামলা দিয়ে ফাঁসানোর ভয় দেখিয়ে অর্থহাতিয়ে নেয়। আবার যারা তাদের পাতানো ফাঁদে পা দিয়ে বিয়ে করে। তাদের সাথে সর্বোচ্চ দুই থেকে তিন মাসের সম্পর্ক টিকে থাকে। বিয়ের পরে স্বামীর কাছ থেকে টাকা পয়সা ও স্বর্ণালংকার হাতিয়ে নেয়।

একই কায়দায় অন্তত ২৪ টি বিয়ে করেছে বলে অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগীরা। প্রতারণার শিকার একটি পরিবারের সদস্য নুরহোসেন জানান, শরিফা কিছুদিন আগে বিয়ে করে চাঁদপুরের হাজিগঞ্জ উপজেলার এক প্রবাসীকে। তার কাছ থেকে বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে ২৬ লাখ টাকা ও ১৫ ভরি গয়না নিয়ে পালিয়ে যায় সে । পরে জানতে পারে, বর্তমানে শরিফা তার ২৪ নম্বর স্বামীকে বিয়ে করে রাজশাহীর সাধুর মোড়ে একটি ভাড়া বাসায় রয়েছে। জানাগেছে, প্রতারক মা-মেয়ের বিরুদ্ধে সদর মডেল থানায় একাধিক মামলা ও সাধারণ ডায়েরী রয়েছে। সে মামলায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানাও রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।