মেইন ম্যেনু

এখনকার‘স্টাইল সিম্বল’ ট্যাটু

অভিনেতা অভিনেত্রী থেকে শুরু করে ফুটবলার অধিনায়ক, পপ তারকা থেকে রকস্টার- তাঁদের শরীরে থাকা ট্যাটু চোখ ধাঁধিয়ে দেয় ভক্তদের। এই প্রজন্মের কাছে আজকাল ট্যাটুই অন্যতম ‘স্টাইল সিম্বল’।

অভিনয় শিল্পী বা পপ তারকাদের ক্ষেত্রেই শুধু নয়, শহর থেকে প্রত্যন্ত এলাকার উৎসাহী তরুণ-তরুণীদের পছন্দের বিষয় হয়ে উঠেছে এই ট্যাটু। এখন খুন জোরেশোরে চলছে ট্যাটুর ব্যাবসা। ট্যাটুর টানে শহরের তরুণ-তরুণীদের আনাগোনায় ওই পার্লারগুলি হয়ে উঠেছে ‘ফ্যাশন ট্রেন্ড পয়েন্ট’।

ট্যাটু স্টুডিওতে রং-বেরঙের আলো, নানা ভাবে সাজানো আকর্ষণীয় দেওয়ালে ছবি, নানা ধরনের মূর্তি। সঙ্গে নাগাড়ে বাজতে থাকা ইংরেজি রক-পপ গানের পরিবেশ মনে করায় পশ্চিমী সংস্কৃতিকে। এক জন ট্যাটু শিল্পী জানান, ট্যাটু নিয়ে আজকাল উৎসাহ বেড়েই চলেছে। কমবয়সী তরুণ-তরুণীরা তো বটেই মাঝবয়সীরাও নাকি এখন ট্যাটু করাতে প্রচণ্ড আগ্রহী।

হাতে, পায়ে শরীরে নানা নকশা রং-বেরঙের ট্যাটু এঁকে প্রিয়জনের নাম লেখার চল এতদিন ছিলই। তাতে নতুন সংযোজন ‘আন্ডার লিপ ট্যাটু। তাতে ঠোঁটের ভেতর ট্যাটু এঁকে প্রিয়জনের নাম লেখা হয়। ট্যাটু অবশ্যই এখন একটি অন্যতম ‘ফ্যাশন টুল’। নিজের প্রিয়জনের নাম শরীরের কোথাও লিখে রাখতে একটু যদি ব্যথা হয়, তাতেও যেন পরোয়া নেই।