মেইন ম্যেনু

এটি কোন আবর্জনা না, জীবিত এক শিশু!

এটি কোন আবর্জনা না! জীবিত মানব শিশু! পুরোনো বিমানবন্দর এর পিছনে এভাবেই পড়ে ছিলো একটি শিশু ! অথচ দুটো মানুষের ইচ্ছের ফসল সে! তার থাকার কথা মায়ের কোলে, বাবার ভালোবাসায়! আজ সে শরীরের নানা অংশে কুকুরের কামড় নিয়ে ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন! সাব্বির নামে একজন শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছেন!

কী অন্যায় ছিলো শিশুটির? যারা সন্তান ছাড়া শুধুমাত্র আনন্দ করতে চান তাদের কি উচিত না প্রতিরোধক ব্যবহার করা? কেন সাবধান হন না? একটি প্রাণ পৃথিবীতে আনার আগে কেন ভাবেন না? ধরে নিলাম আপনাদের উপায় ছিলো না! শিশুটিকে কুকুর বিড়ালের খাবার হিসেবে না ফেলে গেলে হতো না? কোন উপাসনালয় বা হাসপাতালেও তো রেখে যেতে পারতেন!

আমরাও এমন একটি শিশু কুড়িয়ে পেয়েছিলাম ফরিদপুর সুপার মার্কেটের পরিত্যক্ত ফোন বুথে! সময় মতো চিকিৎসা করিয়ে তাকে তুলে দিয়েছিলাম এক নিঃসন্তান বাবা মায়ের কোলে! ভেবেছিলাম আমাদের দুই মেয়ে আছে কাউকে না পেলে আমাদের মেয়ে হয়েই থাকবে! কিন্তু খুব ভালো পরিবার থেকে আগ্রহ করায় আমরা তাকে তাদের হাতে তুলে দেই! আজ মেয়েটি অনেক ভালো আছে! সব শিশুর ভাগ্য ভালো হয় না! কেউ কেউ কুকুর বিড়ালের খাদ্য হয়! অনুরোধ করছি, এমন অন্যায় করবেন না! মায়ের আঁচলের ছায়ায়, বাবার কাঁধে যে সন্তানের আশ্রয় হবে না তাকে দুনিয়ায় আনবেন না! প্লিজ!

[সাবরিনা সিরাজী তিতির]



(পরের সংবাদ) »