মেইন ম্যেনু

এতকাল পানি খাচ্ছিলেন একেবারে ভুল পদ্ধতিতে! জেনে নিন পানি খাওয়ার সঠিক পদ্ধতি…

পানি খাওয়ার পদ্ধতির উপরেও নির্ভর করে শরীরের সুস্থতা। জার্নাল অফ অ্যাপ্লায়েড মেডিকাল সায়েন্সেস-এ প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে সম্প্রতি বলা হয়েছে, পানি খাওয়ার সময় কিছু বিজ্ঞানসম্মত নীতি মেনে চলা উচিৎ।

সুস্থ শরীরের জন্য প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি খাওয়া অত্যন্ত জরুরি। সাধারণভাবে বলা হয়, একজন সুস্থ মানুষের সারাদিনে ন্যূনতম আট গ্লাস পানি খাওয়া উচিৎ। কিন্তু শুধু পানির পরিমাণ নয়, ডাক্তাররা বলছেন, পানি খাওয়ার পদ্ধতির উপরেও নির্ভর করে শরীরের সুস্থতা। জার্নাল অফ অ্যাপ্লায়েড মেডিকাল সায়েন্সেস-এ প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে সম্প্রতি বলা হয়েছে, পানি খাওয়ার সময়ে কিছু বিজ্ঞানসম্মত

নীতি মেনে চলা উচিত। কীরকম? আসুন, জেনে নিই, পানি খাওয়ার সময়ে কী করবেন, আর কী করবেন না।

১. দাঁড়িয়ে পানি খাবেন না: বলা হচ্ছে, দাঁড়িয়ে পানি খাওয়া হলে পাকস্থলির অভ্যন্তরে পানির ধারা নেমে আসে প্রয়োজনাতিরিক্ত তীব্রতায়। যার ফলে ক্ষতি হয় পাকস্থলির অভ্যন্তরীণ অংশের।

২. বসে পানি খান: বসে থেকে পানি খেলে কিডনি অধিক কার্যকর হতে পারে। ফলে রেচন ক্রিয়া যথাযথভাবে হয় এবং শরীর সুস্থ থাকে।

৩. ছোট ছোট চুমুকে পানি খান: অনেকের ধারণা থাকে, ঢক ঢক করে পানি খেলে বুঝি তৃষ্ণা নিবারণ হবে দ্রুত। বাস্তবে আদৌ তেমনটা হয় না। ফলে ছোট ছোট চুমুকে অল্প অল্প পানি খাওয়াই ভাল। তাতে পান করা পানি সহজে গৃহীত হতে পারে শরীরে।

৪. পানি খাওয়ার সময়ে সতর্ক থাকুন স্নায়বিক উত্তেজনা সম্পর্কে: গবেষকদের দাবি, বসে থাকার অবস্থা শরীরের পক্ষে অনেক রিল্যাক্সিং একটি মুদ্রা। ফলে বসে থেকে জল খাওয়াই স্বাস্থ্যসম্মত।

৫. পানি খাওয়ার সময়ে সতর্ক থাকুন বদহজম সম্পর্কেও: দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পানি খেলে, পান করা পানির রিফ্লাক্স ঘটার সম্ভাবনা থেকে যায়। অর্থাৎ ঢেকুর বা অন্য কোনও পদ্ধতিতে পান করা পানি ফিরতি পথে মুখে উঠে আসতে পারে। এমনটা ঘটলে দেখা দেয় অম্বল, গ্যাস, বা বদহজমের মতো সমস্যা। তাড়াহুড়ো করে পানি খেলেও এমন‌টা ঘটতে পারে। কাজেই বসে থেকে ছোট ছোট চু‌মুকে পানি খাওয়াই স্বাস্থ্যকর অভ্যাস।-এবেলা