মেইন ম্যেনু

এনবিআরের জিডি মিথ্যা : যমুনার প্রতিবাদ

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল এবং দৈনিক যুগান্তরের ইকোনমিক এডিটর হেলাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআরের দায়ের করা সাধারণ ডায়েরি (জিডি) সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

বুধবার যমুনা গ্রুপের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এনবিআরের জিডিকে ‘বিভ্রান্তিমূলক’ উল্লেখ করে এর তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বুধবার এনবিআরের পক্ষে রমনা থানায় যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল এবং দৈনিক যুগান্তরের ইকোনমিক এডিটর হেলাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে যে জিডি করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। কোনো রকম যাচাই-বাছাই ছাড়াই এ জিডি করা হয়েছে।’

আরো বলা হয়, ‘এনবিআর সম্পূর্ণ প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে উদ্দেশ্যমূলকভাবে মিথ্যা তথ্যের ওপর ভিত্তি করে যমুনা গ্রুপকে হেয় ও হয়রানি করার জন্যই এ জিডি করেছে।’ সরকারের একটি দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বিচারাধীন মামলা সংক্রান্ত বিষয় উল্লেখপূর্বক এ ধরনের জিডি দায়েরের ঘটনাও নজিরবিহীন বলে মনে করে যমুনা গ্রুপ কর্তৃপক্ষ।

ভুল তথ্য পরিবেশন করার ফলে এনবিআর ভুল বুঝে (মিসগাইডেড) এ ধরনের জিডি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জিডিতে উল্লেখিত তথ্য তদন্ত করলেই আসল সত্য উদঘাটন হবে বলেও উল্লেখ করা হয়।

প্রসঙ্গত, বুধবার সন্ধ্যায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) যমুনা গ্রুপের মালিক নুরুল ইসলাম বাবুল ও ‘দৈনিক যুগান্তর’ পত্রিকার সাংবাদিক হেলাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে একটি জিডি দায়ের করেছে মিথ্যা ও অপপ্রচারের মাধ্যমে এনবিআরের কর্মকর্তাদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি এবং এনবিআর ও এর চেয়ারম্যানকে হেয় করার প্রচেষ্টার অভিযোগে এ জিডি করা হয়েছে। এছাড়া যমুনা গ্রুপের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের রাজস্ব অনিয়মের একটি চিত্র তুলে ধরা হয়েছে ওই জিডিতে।

বুধবার সন্ধ্যায় এনবিআরের জরুরির সভায় সর্বসম্মতভাবে গৃহীত সিদ্ধান্তনুযায়ী রাজধানীর রমনা মডেল থানায় এ জিডি দায়ের করা হয়। এনবিআরে দ্বিতীয় সচিব (বোর্ড প্রশাসন-১) এএইচএম আবদুল করিম এ জিডি (নং- ৬২৪) দায়ের করেন।