মেইন ম্যেনু

ক্রিকেটার থেকে ফুটবল কোচ!

দশ বছর আগে স্টিভ হার্মিসন অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানদের নির্ঘুম রাত উপহার দিয়েছেন। ঘরের মাঠে দুর্দান্ত সব বলে অসি ব্যাটসম্যানদের নাকানি-চুবানি খাইয়েছেন তিনি। ইংল্যান্ডকে মর্যাদার অ্যাশেজ পুনরুদ্ধারে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। দশ বছর পর ক্রিকেট থেকে নতুন ভূমিকায় খবরের শিরোনাম হলেন সাবেক এই ইংলিশ পেসার। এবার ২২ গজে নয়, তাকে দেখা যাবে ফুটবল কোচ হিসেবে।

steve5আগামী শনিবার ৩৬ বছর বয়সী স্টিভ হার্মিসন কোচ হিসেবে ডাগআউটে বসতে যাচ্ছেন। ইংল্যান্ডের অপেশাদার লিগের কোচ হিসেবে সাবেক এই ক্রিকেটারের অভিষেক হতে যাচ্ছে। ইংল্যান্ডের নর্দান লিগ ডিভিশন ওয়ানের দল অ্যাসিংটন এএফসি’র কোচ হিসেবে আগামী শনিবার থেকে জীবনের নতুন অধ্যায় শুরু করতে যাচ্ছেন স্টিভ হার্মিসন। এফএ কাপের বাছাইপর্বের জন্য লড়াই করবে হার্মিসনের দল।

steveএক দশক আগে যখন ইংল্যান্ড দল চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়াকে মর্যাদার অ্যাশেজ সিরিজে ২-১ ব্যবধানে পরাজিত করেছিল তখন হাজার হাজার সমর্থক স্টিভ হার্মিসনদের ঐতিহাসিক ট্রাফাগলার স্কোয়ারে অবিস্মরণীয় এক সংবর্ধনা দেয়। খোলা বাসে মাইকেল ভনের দল দর্শকদের কাছ থেকে সংবর্ধনা গ্রহণ করেন।

১০ বছর পর অ্যাসিংটন এএফসি স্টিভ হার্মিসনের কাছ থেকে তেমনই দুর্দান্ত কিছু আশা করছেন। অসাধারণ কিছু করে হার্মিসন তার দলকে ওয়েম্বলিতে এফএ কাপের চূড়ান্ত-পর্ব খেলার যোগ্যতা অর্জনে সহায়তা করবেন এমনটাই বিশ্বাস অ্যাসিংটন এএফস’র।

steve2ইংল্যান্ডের ২০০৫ সালের অ্যাশেজ জয়ের অন্যতম কারিগর স্টিভ হার্মিসন নতুন ভূমিকা নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত ও রোমাঞ্চিত, ‘যদি ২০০৫ সালে কেউ আমাকে বলতো যে ১০ বছর পর আমাকে এফএ কাপে অ্যাসিংটন এএফস’র কোচের দায়িত্ব অর্পণ করবে তবে আমি তাকে নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করতাম।’

অ্যাসিংটন এএফসি’র প্রতি নিজের ভালোবাসার কমতি নেই হার্মিসনের, ‘এটি আমার নিজ শহরের ক্লাব। আমি ছোটবেলায় এখানে খেলেছি এবং পরবর্তীতে পেশাদার ক্রিকেটার হয়েছি। আমার বাবা, জিমি এই ক্লাবের হয়ে খেলেছে এবং আমার ভাই এই ক্লাবের হয়ে এখন খেলছে। ক্রিকেটার হওয়ার পরও আমি অ্যাসিংটনের সঙ্গে অনুশীলন করেছি যাতে করে অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো কঠিন প্রতিপক্ষের বিপক্ষে নিজের শতভাগ উজাড় করে দিতে পারি।’

steve3কোচিং হিসেবে অভিষেকের জন্য তর সইছে না স্টিভ হার্মিসনের, ‘ফুটবল কোচ হতে পেরে আমি বেশ আনন্দিত, খেলাটার প্রতি আমার ভালোবাসা শৈশব থেকেই। তাদের উদ্দীপনাই আমাদের এখানে আসতে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। আমি এফএ কাপের জন্য আর অপেক্ষা করতে পারছি না।’

২০০৫ সালে ঘরের মাঠে অ্যাশেজ সিরিজে ১৭ উইকেট লাভ করে ইংল্যান্ডকে অ্যাশেজ জয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন স্টিভ হার্মিসন। সিরিজের প্রথম টেস্টে ৮ উইকেট লাভ করেন তিনি।

steve4প্রসঙ্গত, ২০০২ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত ইংল্যান্ড জাতীয় দলের হয়ে ৬৩টি টেস্ট খেলেন স্টিভ হার্মিসন। ৩১.৮২ গড়ে টেস্টে তিনি ২২৬ উইকেট লাভ করেন। আটবার ইনিংসে ৫ বা ততোধিক উইকেট লাভ করেন এবং একবার ম্যাচে ১০ উইকেট লাভের কৃতিত্ব দেখান। এছাড়া ইংল্যান্ডের জার্সি গায়ে ৫৮টি ওয়ানডেতে ৭৬ উইকেট লাভ করেন তিনি।