মেইন ম্যেনু

এবার দেহের ওজন কমাবে কম্পিউটার গেম, গুজব নয় সত্য !

দেহের বাড়তি ওজন নিয়ে যারা সমস্যায় রয়েছেন তাদের জন্য এবার ‘হাইটেক’ সমাধান এনেছে নতুন ধরনের অ্যাপ ও কম্পিউটার গেম। স্মার্টফোনে এ গেমসটি ইনস্টল করে খেললেই তার মাধ্যমে ওজন কমানোর নানা অনুপ্রেরণা পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন গেমসটির নির্মাতারা। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে হিন্দুস্তান টাইমস।

ডায়েটড্যাশ নামে কম্পিউটার গেমস ও স্মার্টফোন অ্যাপ ব্যবহার করে অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করা যাবে বলে জানিয়েছেন নির্মাতারা। এটি মূলত একজন মানুষকে খাবার নিয়ন্ত্রণ করতে অনুপ্রেরণা যোগাবে। এতে ওজন হ্রাসে আগ্রহী যে কেউ ওজন কমানোর উপায় খুঁজে পাবেন।

গেমটি শুধু ওজন কমানোর জন্য তাও নয়। এটি স্বাস্থ্যকর খাবারের বিষয়ে উৎসাহী করে তুলবে। একজন মানুষ কিভাবে খাবার বিষয়ে নিজের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করবে, তা শেখানো হবে এ গেমসে।

কোনো খাবার কতখানি খাওয়া উচিত এবং খাওয়ার কোন পর্যায়ে থামা উচিত এ বিষয়টি প্রায়ই মানুষের নিয়ন্ত্রণে থাকে না। কিন্তু মানুষের মস্তিষ্ককে কিছুটা প্রশিক্ষণ দিয়ে এ বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করা শেখানো যায়। এছাড়া অস্বাস্থ্যকর খাবার বিষয়েও এভাবে শিক্ষা নেওয়া যায়। এ পদ্ধতি ব্যবহার করে এমনকি মজাদার ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের গন্ধও আপনি উপেক্ষা করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন নির্মাতারা।

মোবাইল অ্যাপটি ব্যবহার করে প্রত্যেকের নিজস্ব খাবারের ধরন নির্ণয় করা যায়। এরপর ব্যবহারকারীরা যখন তাদের নিজস্ব খাবারের ধরন থেকে বিচ্যুত হয়ে অস্বাস্থ্যকর খাবারের দিকে চলে যায় তখন অ্যাপটি তাকে সতর্ক করার সুযোগ পায়। এছাড়া খাবারের ওপর ব্যবহারকারীর নিজস্ব নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করাও সহজ হয়।

সম্প্রতি গবেষকরা এ অ্যাপটি পরীক্ষা করেছেন। এতে যারা নির্দিষ্ট খাবার খেতে অভ্যস্থ তাদের বাড়তি খাবার পরিবেশন করে পরীক্ষা করা হয়। এতে দেখা যায়, বাড়তি খাবারের লোভ সংবরণ করতে তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন। এছাড়া দেখা গেছে, খাবার খাওয়ার পরিমাণ কমাতেও এ অ্যাপটি কার্যকর।

ডায়েটড্যাশ গেমটিতে প্রথমেই অংশগ্রহণকারীরা কোন ধরনের মিষ্টি খাবার বেশি খান তার তথ্য দেন। এরপর তাদের গেমের চারটির মধ্যে একটি পার্ট খেলতে দেওয়া হয়, যেখানে তাদের খাবারের কিছুটা পরিবর্তিত রূপ থাকে। যেমন ধরা যাক সোডা, চকলেট চিপ, কুকিজ ইত্যাদি। এক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের খাবারের ছবি তাদের সামনে উপস্থাপন করে তাদের মানসিক শক্তি বৃদ্ধি করা হয়। সপ্তাহে ছয় দিন এ গেমটি আট মিনিট করে খেলার পর ব্যবহারকারীদের যথেষ্ট উন্নতি দেখা যায়।

এ অ্যাপটি বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ড্রেক্সেল ইউনিভার্সিটির গবেষক ইভান ফোরম্যান বলেন, ‘গবেষণায় দেখা গেছে, আপনি যদি কোনো বিষয়ে সংযত হওয়ার অনুশীলন বারবার করেন তাহলে একসময় আপনি শক্তিই শক্তসমর্থ হয়ে উঠবেন।’

বাস্তবে অ্যাপ ও গেমটির কার্যকারিতা পরীক্ষার পরও গবেষকরা সন্তুষ্ট হয়েছেন। এটি ব্যবহার করে বাড়তি খাবার কিংবা ক্ষতিকর খাবার খাওয়ার প্রবণতা অনেকাংশে কমানো সম্ভব হয়েছে।