মেইন ম্যেনু

এবার প্রকাশ্যে পর্নো ভিডিও দেখাতে চায় গুগল!

অনলাইনে যেন সবাই নিরাপদে পর্নো ভিডিও দেখা যায়, সেটা নিশ্চিত করতে চায় গুগল। সার্চ জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটি এজন্য বিশ্বের শীর্ষ জনপ্রিয় কিছু পর্নো ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরীক্ষা করেছেন।

এসব পর্নো সাইটগুলোর সম্মিলিত ট্রাফিক, বিশ্বের বাকি সব ওয়েবসাইটগুলোর মোট ট্রাফিকের ২৫ শতাংশ দখলে রেখেছে। কেননা পর্নো সাইটগুলো বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বেশি দেখা হয়ে থাকে। এই সাইটগুলোকে আরো কিছুটা নিরাপদ করতে চায় গুগল।

বিশ্বের জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলোর তালিকায় পর্নো সাইটগুলোর সংখ্যাই বেশি।অথচ এদের মধ্যে বেশিরভাগ পর্নো ভিডিও সাইটেরই তেমন নিরাপত্তা প্রোটেকল নেই, যেমটা গুগল সার্চে গুগলের নিজস্ব বিভিন্ন পেজ ও সেবার রয়েছে।

গুগল ট্রান্সপারেন্সি রিপোর্ট তাদের নিরীক্ষায় এ ধরনের বিভিন্ন প্রাপ্ত বয়স্ক সাইট তালিকাভুক্ত করেছে, যার মধ্যে রেডটিউব, এক্সহামসটার, ইউপর্ন, পর্নহাব-এর মতো সাইটগুলোও রয়েছে।

অনলাইন নিরাপত্তা রিপোর্ট গুগলের মন্তব্য, ‘নিরাপত্তা সবসময়ই গুগলে শীর্ষ অগ্রাধিকারে থাকে। আমাদের সাইট ও সেবাগুলো যাতে বাই ডিফল্ট আধুনিক এসএসএল (সিকিউর সকেট লেয়ার) এনক্রিপশনের হয় অর্থাৎ https হয়, তা নিশ্চিতের জন্য আমরা বিনিয়োগ করছি এবং কাজ করে যাচ্ছি।’

‘আমরা জানি যে, অন্যান্য সাইটগুলোও https প্রযুক্তিতে যাওয়ার জন্য কাজ করে চলেছে এবং বড় সাইটগুলোর জন্য https প্রযুক্তিতে যাওয়া কঠিন চ্যালেঞ্জ হতে পারে।’

‘আমরা গুগল ওয়েব ফান্ডামেন্টালস এর মাধ্যমে সকল ওয়েব মাস্টারদের জন্য https টিপস ও ট্রিকস এবং যখন দেখছি কেউ https প্রযুক্তিতে যেতে কাজ করছে তখন নির্দিষ্ট পরামর্শও প্রদান করছি।’

‘অনলাইন প্লাটফর্মকে সম্পূর্ণভাবে নিরাপদ করে তুলতে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ এবং তা শুধু গুগলের গ্রাহকদের জন্য নয়, বরঞ্চ সকল ব্যবহারকারীর জন্যই।

ইন্টারনেটে ব্যবহারকারীরা কী করছে, https এনক্রিপশন প্রযুক্তি সেটা জানা কঠিন করে দেবে ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার, সরকার ও হ্যাকারদের জন্য। এজন্য আমরা জনপ্রিয় ১০০টি প্রতিষ্ঠানকে সহায়তা করছি, যাতে তারা এ বছরের শেষের দিকে https প্রযুক্তিতে যেতে পারে।’

এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রেডটিউব, এক্সহামসটার, ইউপর্ন, পর্নহাব, এক্সএনএক্সএক্স, এক্সভিডিওস এর মতো জনপ্রিয় পর্নো সাইটগুলো ছাড়াও রয়েছে ইয়াহু, টেলিগ্রাফ, নিউইয়র্ক টাইমস, এমএসএন, ইবে, ফোর্বস, ডেইলি মেইল, বিং, আস্ক, অ্যাপল, আলিবাবা সহ জনপ্রিয় সব ওয়েবসাইট।

ফেসবুক, টুইটার, লিংকডইন, ইনস্টাগ্রাম, রেডডিট, হোয়াটসঅ্যাপ, টাম্বলার, পিনারেস্ট, ইয়াহু, নেটফ্লিক্স, পেপ্যাল, উইকিপিডিয়া সহ আরো কিছু সাইট গুগলের সার্চের নিরাপদ সাইটের তালিকায় রয়েছে। এই সাইটগুলো https এনক্রিপশন প্রযুক্তি সম্পন্ন।

প্রসঙ্গত, ওয়েবসাইট https এনক্রিপশন প্রযুক্তির হলে, তা হ্যাক করা যায় না এবং ব্যবহারকারীদের তথ্য সম্পূর্ণভাবে সুরক্ষিত থাকে। কিন্তু সময় এবং খরচ বাচাঁতে অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের ওয়েবসাইটে https এনক্রিপশন যুক্ত করাকে ঝামেলা মনে করে।

এ কারণে গত বছর গুগল এ বিবৃতিতে জানিয়েছিল, শুধুমাত্র নিরাপদ ওয়েবসাইটগুলোকেই তাদের সার্চ র‌্যাংকিংয়ে জায়গা দেবে গুগল। যেসব ওয়েবসাইটে এইচটিটিপিএস সুরক্ষা নেই সেগুলোকে সার্চ ইঞ্জিনের অ্যালগরিদম থেকে বাদ দেবে।



« (পূর্বের সংবাদ)