মেইন ম্যেনু

এবার প্রেমের টানে ভারত থেকে ফিরে এলো বিউটি

বগুড়ার শেরপুরে প্রেমের টানে ভারত থেকে প্রেমিক নাজমুলের কাছে ছুটে এসেছে বিউটি সাহা (৩০) নামের এক যুবতী। বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার সাধুবাড়ি চকমুকুন্দ গ্রামের ইয়াছিন আলীর পুত্র মোবাইল মেকানিক্স নাজমুলের সঙ্গে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রায় ৩ বছর আগে পরিচয় ঘটে বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার নামুজা-বুড়িগঞ্জ বাজারের বীরেন্দ্র নাথ সাহার কন্যা বিউটি রানী সাহা (৩২)-এর সঙ্গে।

বিউটি জানায়, মোবাইল ফোনে যোগাযোগ থেকে আমাদের মাঝে গভীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিউটি বগুড়া জেলা নোটারী পাবলিকে উপস্থিত হয়ে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম ধর্মের রীতিতে নাজমুলের সঙ্গে বিয়েতে আবদ্ধ হয়। ৩০শে মার্চ ২০১৪ তারিখে বিউটির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ফাতেমা খাতুন। এরপর বিয়েতে আপত্তি তোলে বিউটির ভাই পলাশ সাহা। একপর্যায়ে বিউটিকে নাজমুলের সঙ্গে বিয়ে ভঙ্গ করে আদালত থেকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের মামলা প্রত্যাহার করে নেয় পলাশ সাহা।

এর পরের বছর গত ১৫ই মে আপোস মীমাংসার মাধ্যমে তার ভাই পলাশ সাহা বিউটিকে ভারতে তার নিকট আত্মীয়ের বাড়িতে রাখে। সেখানে প্রায় ২ বছর ৩ মাস সময় থাকার পর ভারতে হিন্দু ধর্মের ছেলের সঙ্গে বিয়ে দিতে চাইলে বিউটি রাজি হয়নি। এরপর সে আবারও দেশে ফিরে আসে। গতকাল ভোরে বিউটি সাহা ওরফে ফাতেমা খাতুন নিজ বাড়ি থেকে পালিয়ে চলে আসে শেরপুরে। সকাল ৭টার সময় শেরপুরে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের খেজুরতলায় ১টি সিএনজিতে আসার পথে বিউটির ভাই পলাশসহ বেশ কয়েকজন মিলে বিউটি-নাজমুল ২ জনকে আটক করে। এ সময় ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে শেরপুর থানা পুলিশ ওই প্রেমিক যুগলকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

ফাতেমা খাতুন ওরফে বিউটি সাহা জানায়, আমি আদালতের মাধ্যমে আমার স্বামী নাজমুলের কাছে যাবো। অন্যথায় জেল হাজতে থাকতে রাজি আছি। প্রেমিক নাজমুলের একই বক্তব্য।-এমজমিন