মেইন ম্যেনু

এবার ফিরে যাচ্ছেন প্রেমের টানে ছুটে আসা সেই মার্কিন তরুণী

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দুজনের পরিচয়। একজন বাংলাদেশি তরুণ অপরজন মার্কিন তরুণী। ফেসবুকে একে অপরের প্রেমে পড়েন।

যদিও মার্কিন তরুণী মেনডি কুসারের (৩৯) আগে বিয়ে হয়েছে। ওই সংসারে দুই সন্তানও ছিল তার। কিন্তু সেই সন্তানদের সঙ্গে মায়ার বন্ধন মাড়িয়ে প্রেমের টানে দেশ ছেড়ে চলে আসেন বাংলাদেশে।

বাংলাদেশে এসে নারায়ণগঞ্জের তরুণ ফারহান আরমানকে (৩০) বিয়েও করেন তিনি। ভালোবাসার মানুষটিকে বিয়ে করে ৭-৮ মাস ধরে সংসার করলেও পারিবারিক কলহের জেরে স্বামীর ঘর ছেড়ে দেশের মাটিতে চলে যেতে বাধ্য হচ্ছেন তিনি।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে মেসেজের মাধ্যমে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র রাষ্ট্রদূতের কাছে স্বদেশে ফিরতে সহযোগিতা চান মেনডি। পরে রাষ্ট্রদূত স্থানীয় পুলিশকে বিষয়টি অবগত করলে তাকে আরমানের বাসা থেকে এনে রাষ্ট্রদূতের কাছে পৌঁছে দেয় পুলিশ।

বুধবার বিষয়টি নিশ্চিত করে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল উদ্দিন বলেন, মেনডি কুসার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ১০৮ উইলিয়াম স্ট্রিটের বাসিন্দা স্টেনলে কুসারের কন্যা। আর আরমান নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার মাসদাইর এলাকার জালাল উদ্দিনের ছেলে। তিন বছর আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয় তাদের। সেই পরিচয় প্রেমে গড়ালেই যুক্তরাষ্ট্র ছেড়ে বাংলাদেশে চলে আসেন মেনডি।

ওসি বলেন, পরে তারা বিয়ে করে মাসদাইর পতেঙ্গার মোড় ভাড়া বাসায় বসবাস করেন। ৭-৮ মাস সংসার করার পর হঠাৎ অভাব-অনটনের কারণে তাদের পারিবারিক কলহ সৃষ্টি হয়। পরে মেনডি কুসার যুক্তরাষ্ট্রের হাইকমিশনারের কাছে এসএমএস করলে তারা নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশকে অবগত করে। পরে তাকে উদ্ধার করে যুক্তরাষ্ট্রের হাইকমিশনারের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ।

মেনডি স্বদেশে ফিরে গেলেও স্বামী আরমানকে যেন হয়রানি বা কোনো কিছু করা না হয় সেজন্য পুলিশকে বিশেষভাবে অনুরোধ করেন বলেও জানান ওসি।

প্রসঙ্গত, এর আগে প্রেমের টানে টাঙ্গাইলের সখীপুরে আসা মালয়েশীয় তরুণী জুলিজা বিনতে কামিস ১৭ দিন পর গত রোববার নিজ দেশে ফিরে গেছেন।






মন্তব্য চালু নেই