মেইন ম্যেনু

এবার ফেরার পালা

ঈদের টানা তিন দিনের ছুটি শেষ হচ্ছে রোববার। আর সোমবার থেকেই শুরু হচ্ছে আফিস, আদালত, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম।

ইতিমধ্যে কর্মচঞ্চল মানুষগুলো ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে। সোমবার ভোর নাগাদ কমলাপুর রেলস্টেশন, সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এবং বাস টার্মিনালগুলোতে ঢাকায় ফেরা মানুষের ঢল নামবে।

ঈদ উপলক্ষে গত ১৭ থেকে ১৯ জুলাই রোববার পর্যন্ত তিন দিনের ছুটি ছিল। এ ছুটি শেষ হচ্ছে রোববার।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মহাসড়কে যানজটের ভোগান্তি এবং ছুটির হিসাব মাথায় রেখে কর্মজীবী মানুষের অনেকেই ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছেন। যারা নির্ভেজাল যাতায়াত করতে চান, তারাও এ সুযোগ হাতছাড়া করছেন না।

কারণ, ঈদের আগে দেশের প্রধান মহাসড়কগুলো ছিল যানজটের দখলে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যাত্রীদের। ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-খুলনা ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যানজটের কারণে যাত্রী ভোগান্তি চরমে ওঠে।

তাই ভোগান্তি এড়াতে একটু আগেভাগেই রোববার রাত থেকে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করবেন ঢাকাবাসী। এ ছাড়া যাদের নিজস্ব পরিবহণ রয়েছে তারাও আগেই রওনা দিচ্ছেন ঢাকার পথে।

রোববার ভোর থেকে বিভিন্ন পরিবহণে ফিরতে দেখা গেছে ঘরমুখী মানুষদের।

রোববার সকাল পৌনে ৯টায় আরামবাগ বাস কাউন্টারে কথা হয় ঢাকায় ফেরা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা সাজ্জাদ লতিফের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘ঈদের ছুটি শেষ হলেও এখনো উৎসবের রেশ কাটেনি। মহাসড়কেও তাই যানজট নেই। এসব বিবেচনায় একটু আগেই ঢাকা ফিরলাম।’

আগামীকাল সোমবার এবং পরের দিন মঙ্গলবার যাত্রীদের চাপ বেশি থাকবে বলে ধারণা সায়েদাবাদের বাস মালিক ও চালকদের।

চট্টগ্রাম থেকে শনিবার রাতে ছেড়ে আসা টিআর ট্রাভেলসের বাসচালক সেকেন্দার আলীর সঙ্গে মতিঝিলে কথা হয়। তিনি জানান, চট্টগ্রামের কাউন্টারে অগ্রিম টিকিট কাটার বাড়তি চাপ ছিল না। তবে ঢাকাগামী যাত্রীর সংখ্যা একেবারে কম নয়। ফলে কোনো বাসকেই খালি আসতে হচ্ছে না। তবে সোমবার ও মঙ্গলবার যাত্রীদের চাপ বেড়ে যাবে।

রোববার সকাল সাড়ে ৮টায় রাজধানীর আরামবাগে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা ঈগল পরিবহণের সুপারভাইজার মহসিন আলী বলেন, ‘ছুটি তো শেষ হচ্ছে আজ। তাই মানুষ আসতে শুরু করেছে। তবে প্রতিবছরের চেয়ে এবার একটু চাপ মনে হচ্ছে।’

সদরঘাট টার্মিনাল সূত্রে জানা গেছে, এখান থেকে প্রতিদিন প্রায় ৪৪টি রুটে ১৬০-১৭০টি লঞ্চ চলাচল করে। এখনো চাপ না বাড়লেও রোববার রাত থেকে ঢাকামুখী মানুষের ভিড় বাড়বে। সদরঘাটে যাত্রী সেবায় পুলিশ, র‌্যাব ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কাজ করছেন।

রোববার সকাল থেকে কমলাপুর রেলস্টেশনে আসা সব ট্রেনেই ছিল মানুষের ভিড়। তেমনি ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া ট্রেনগুলোতে যাত্রী সংখ্যাও ছিল বেশ। অর্থাৎ যারা ছুটি পাননি কিংবা ব্যস্ততার কারণে যেতে পারেননি, তারা এখন বাড়ি যাচ্ছেন।

ঈদের পরে রোববার মানুষজন রেলপথে ঢাকায় আসা শুরু করেছেন। সোমবার থেকে যাত্রীর চাপ আরো বাড়তে পারে। সোমবার থেকে অতিরিক্ত চাপ সামলাতে তাই বাড়তি ট্রেনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।



« (পূর্বের সংবাদ)