মেইন ম্যেনু

এবার মাথার খুলির বায়োমেট্রিক

গোপনীয়তা যখন ১টি বড় ইসু, তখনই ‘মস্তিষ্কের খুলি’ ব্যবহারের বায়োমেট্রিক পদ্ধতি নিয়ে এলেন ১দল গবেষক।

জার্মানির এই বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবিত গুগল গ্লাসভিত্তিক এই প্রযুক্তির মাধ্যমে মাথার খুলিকে স্মার্টফোন আনলকের চাবি হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন ব্যবহারকারীরা।

ইউনিভার্সিটি অফ সারল্যান্ড এবং ইউনিভার্সিটি অফ স্টাটগার্ট-এর কম্পিউটার বিজ্ঞানীরা ‘স্কালকনডাক্ট’ নামের এই প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন বলে ব্যবসা-বাণিজ্যবিষয়ক সাইট বিজনেস ইনসাইডার জানিয়েছে।

এই প্রযুক্তির মাধ্যমে মানুষের খুলি ব্যবহার করে ১টি ডিজিটাল কোড তৈরি করা সম্ভব, যা স্মার্টফোনের সুরক্ষায় ব্যবহৃত হতে পারে।

সারল্যান্ড ইউনিভার্সিটি-এর ‘ক্লাস্টার অফ এক্সেলেন্স’ আন্দ্রেজ বুলিং বলেন, গুগল গ্লাসের মতো চোখে পরিধানযোগ্য কম্পিউটারগুলো ইতোমধ্যেই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যবহৃত হচ্ছে। গুগল গ্লাস পদার্থবিজ্ঞানের কোনো পরীক্ষা, রসায়ন ল্যাবে মূল্যায়ন কিংবা চিকিৎসাক্ষেত্রে কার্যকারিতা বাড়াতে ব্যবহার করা হচ্ছে।

বুলিং ব্যাখ্যা করেন, প্রযুক্তিটি কাজের সময় কেবল ব্যবহারকারীর হাতই খালি রাখবে না সেইসঙ্গে একাধিক ব্যবহারকারীর ক্ষেত্রে ডিভাইসের গুরুত্বপূর্ণ ডেটা নিরাপদে রাখবে।

গবেষকরা গুগল গ্লাসের সঙ্গে থাকা ক্ষুদ্র মাইক্রোফোন এবং ‘বোন কন্ডাকশন স্পিকার’ ব্যবহার করেছেন। বোন কন্ডাকশন স্পিকার অন্তঃকর্ণের মধ্য দিয়ে শব্দতরঙ্গ খুলির মধ্যে প্রবেশ করায়। একটি নির্দিষ্ট খুলির মধ্য দিয়ে শব্দতরঙ্গ এমনভাবে পরিবর্তন হয় যা প্রতিটি মানুষর জন্য আলাদা। আর এই পার্থক্যকেই বায়োমেট্রিক পদ্ধতির জন্য ব্যবহার করা যায়।

নতুন এই পদ্ধতিটি শতকরা ৯৭ ভাগ যথাযথ বলে জানিয়েছে সাইটটি। সম্প্রতি ক্যালিফোর্নিয়ার স্যান হোসে-তে অনুষ্ঠিত হওয়া “হিউম্যান ফ্যাক্টরস ইন কম্পিউটিং সিস্টেমস (সিএইচআই)” শীর্ষক সম্মেলনে নিজেদের প্রযুক্তির খুঁটিনাটি তুলে ধরে গবেষকদের এই দল।