মেইন ম্যেনু

এমপি এখন ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী!

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ছয় ধাপে অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে দেশের কয়েকটি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের দিন-তারিখ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। এই প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতিকে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে দলীয় মনোনয়ন পেতে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। কিন্তু সিলেটের বিশ্বনাথে এখনও নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা হয়নি। তারপরও থেমে নেই আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রার্থীরা দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন। প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকায় হওয়ায় আসন্ন ইউপি নির্বাচনে অংশ নিতে প্রবাসী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য দেশে আসতে শুরু করেছেন।
জানা গেছে, উপজেলায় দলীয়ভাবে এখনও আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জামায়াত প্রকাশ্যে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা করতে দেখা যায়নি। কিন্তু ইউপি নির্বাচনের আগেভাগেই জাতীয় পার্টি মাঠে সরব রয়েছে। উপজেলার আটটি ইউনিয়নে জাতীয় পার্টি দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করবে। স্থানীয় সংসদ সদস্য ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া হচ্ছে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা। ইতিমধ্যে তিনি উপজেলায় দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইতে শুরু করেছেন। ৫ জানুয়ারি সংসদ নির্বাচনে যেখানে তিনি ভোট চাইতে যাননি, এখন সেইসব এলাকায় আসন্ন ইউপি নির্বাচনে লাঙ্গল প্রতীকের আগাম ভোট চাইতে শুনা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে তিনি উপজেলার লামাকাজি ইউনিয়ন ও দৌলতপুর ইউনিয়ন এলাকাবাসীর সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেছেন। এসব সভায় তিনি তার নির্বাচনী আসন সিলেট-২ উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে লাঙ্গল প্রতিকে ভোট দেয়ার জন্য এলাকাবাসীর প্রতি আহবান জানিয়ে আসছেন। দলীয় সংসদ সদস্য পেয়ে আগের চেয়ে উপজেলায় জাতীয় পার্টি অনেক চাঙ্গাভাব দেখা যাচ্ছে। এমপি ইয়াহইয়া চৌধুরী সংসদ নির্বাচিত হওয়ায় এলাকায় কিছুটা হলেই মানুষের অন্তরে স্থান করে নিয়েছেন বলে এলাকাবাসী জানান।
গত শনিবার উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের সত্তিস গ্রামে এলাকাবাসীর সঙ্গে মতবিনিময় সভায় স্থানীয় এমপি ও জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী এহিয়া এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন, ‘উন্নয়নের স্বার্থে আমাকে (এহিয়া) আবারও লাঙ্গল প্রতিকে ভোট দিন’ “সংসদ নির্বাচনে আপনাদের কাছে নানান জটিলতা থাকার কারণে ভোট চাইতে আসিনি, তবুও আপনারা আমাকে নির্বাচিত করেছেন। এতো দিন আপনাদের কাছে আসিনি, আজ এসেছি ভোট চাইতে। তাই ‘অন্ধ হউক আর পঙ্গু হউক’ আপনারা আসন্ন ইউপি নির্বাচনে লাঙ্গল প্রতিকে আমাকে ভোট দিয়েছেন মনে করে, জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থীদেরকে বিজয়ী করুণ। তবেই পাবেন এলাকায় আপনাদের কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন।”
‘ডাঙ্গায় থাকলে বাঘে দৌঁড়ায় আর পুকুরে গেলে কুমির’ এমন পরিস্থিতি এত দিন আমাকে (এহিয়া) চলতে হয়েছে। এখন বাঘও নেই, কুমিরও নেই। এখন আমি স্বাধীন।
এমপি ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী এহিয়ার এমন বক্তব্যে উপজেলার বিভিন্ন স্তরের সাধারণ মানুষের মনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে তবে কি ইউপি নির্বাচনে ‘এমপি এখন ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী?’
এলাকাবাসী জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আসার আগেই দলীয় প্রার্থীকে ভোট দেয়ার আহবান জানিয়েছে আসছেন। এমনভাবে তিনি ভোট চাইতে শুরু করেছেন, এতে বুঝা যাচ্ছেন যেন ইউপি নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হয়েছেন!
এব্যাপারে উপজেলা জাতীয় পার্টির রফিকুল আলম লালু ও জয়নাল আবেদিন বলেন, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে সবকয়টি ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করা হবে। এর জন্য আগেভাগেই আমাদের নেতা এমপি এহিয়া চৌধুরী জনগণের কাছে ভোট চাচ্ছেন। দলীয় প্রার্থী নির্বাচিত হলে এলাকায় আরও ব্যাপক উন্নয়ন হবে। আশা করি এবারের ইউপি নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা জয়লাভ করবে।
সংসদ সদস্য ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী এহিয়া মানবকণ্ঠকে বলেন, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী দেয়া হবে। ইতিমধ্যে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের প্রার্থী বাচাই করা হয়েছে। মানবকণ্ঠ