মেইন ম্যেনু

এরশাদকে ঘটনার ব্যাখ্যা দিলেন সেলিম ওসমান

নারায়ণগঞ্জে একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষককে কান ধরে ওঠ-বস করানোর জন্যে অভিযুক্ত সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান তার দল জাতীয় পার্টির কাছে ঘটনার ব্যাখ্যা দিয়েছেন।
বিষয়টি নিয়ে অব্যাহত বিতর্কের মাঝে রোববার দলের চেয়ারম্যান জেনারেল এরশাদের সাথে দেখা করে তার হাতে লিখিত বক্তব্য তুলে দিয়েছেন মি. ওসমান। সাথে একটি ভিডিও-ও দিয়েছেন জেনারেল এরশাদের কাছে।
দলের নীতি নির্ধারকদের সভায় তার এই লিখিত বক্তব্য পর্যালোচনা করে সেলিম ওসমানের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার।
গত ক’দিন ধরে সেলিম ওসমানকে নিয়ে সমাজের প্রায় সর্বস্তরে আলোচনা-বিতর্কের ঝড় চললেও, তার দল জাতীয় পার্টি কিছু বলেনি। সেটা কেন?
সেলিম ওসমানকে নিয়ে জাতীয় পার্টির অবস্থান আসলে কি জানতে চাইলে মি. হাওলাদার বিবিসি বাংলাকে বলেন, দেশের বেশিরভাগ মানুষ যেটা ভাবেন সেটা বিবেচনা করেই দল পরিচালিত হয়। “জনগণের সেন্টিমেন্টকে সম্মান জানানো এবং তাদেরকে সাথে রাখা আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য,” বলেন তিনি।
তিনি বলেন, “এমপি সাহেবকে নিয়ে যে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তার প্রেক্ষিতে সেলিম ওসমান আমাদের নেতার সাথে দেখা করে তার বক্তব্য তুলে ধরেছেন। প্রেসিডিয়ামের সভায় এটা নিয়ে আলোচনা হবে। আলোচনার পরেই এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।”
জাতীয় পার্টির মহাসচিব জানান, খুব শীঘ্রই এবিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। “এমাসের মধ্যেই কিম্বা তার আগেই সিদ্ধান্ত হয়ে যাবে,” বলেন তিনি। তবে মি. ওসমান কি ব্যাখ্যা দিয়েছেন সেবিষয়ে তিনি কিছু বলেননি।
মি. হাওলাদার বলেন, এই ঘটনায় জাতীয় পার্টি কিছুটা বিব্রত।
দল থেকে তাকে বহিষ্কার করা হতে পারে কীনা এই প্রশ্নের জবাবে জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, এই ঘটনায় আদালত তদন্ত করতে বলেছে। তাই এবিষয়ে তিনি কিছু মন্তব্য করতে চান না। তবে তিনি বলছেন, বিষয়টিকে তারা বেশ গুরুত্বের সাথেই নিয়েছেন।