মেইন ম্যেনু

ওজন কমানোর যেসব ডায়েট ফুড আপনাকে মোটা করে তুলছে

যারা ওজন নিয়ে সবসময় সচেতন থাকেন বা ওজন কমাতে চান তারা ডায়েট ফুড ও ড্রিঙ্কস বেশি পছন্দ করেন। তারা বাজার করা বা খাবার তৈরি করার সময় এই সব খাবার গুলোকে প্রাধান্য দেন বেশি। তবে এখানে কিছু খাবারের কথা উল্লেখ করা হলো যা আপাত দৃষ্টিতে মনে হতে পারে যে সেই খাবার গুলো আপনার স্বপ্নের আকর্ষণীয় দেহের আকৃতি তৈরি করতে সহায়ক কিন্তু সত্যিকার ভাবে তা অনেকটা দুঃস্বপ্ন হয়ে উঠতে পারে।

সাধারণ দই

প্রথমেই দইয়ের নাম দেখে হয়তো একটু অবাক হচ্ছেন। যদিও দই আমাদের অভ্যন্তরীণ অন্ত্র, হাড় এবং প্রতিরোধক ক্ষমতা্র জন্য খুবই ভালো একটি খাবার। কিন্তু এক কাপ (২২৫গ্রাম) সাধারণ দইয়েই থাকে প্রায় ১২ গ্রাম চিনি। আর সেটা অন্য কোনো ফ্লেভার হলে প্রায় চিনির পরিমান দ্বিগুণের মত হয়ে যায়। তাই যারা ওজন কমাতে চান তাদের জন্য নন ফ্যাট টক দই খেতে হবে।

চিনিমুক্ত খাবার

যারাই ওজন কমাতে চান বা নিয়ন্ত্রনে রাখতে চান তারা বাজারে গেলেই “চিনি মুক্ত” লেখা প্যাকেট খাবারগুলোর দিকে আকর্ষিত হন। কিন্তু এটা আসলে খুবই ভুল ধারনা কারন এসব খাবার উৎপাদনকারীরা খাবারগুলোকে মজাদার করার জন্য অতিরিক্ত ফ্যাট যোগ করে থাকেন। সেটা ডায়াবেটিক দই বা মিষ্টি, বা চিনি মুক্ত কেক বা বিস্কিটই বলুন। কারন খেতে মজা না হলে কেউ সেটা কিনতে বা খেতে আকৃষ্ট হবে না। যেমন একটি চিনি মুক্ত বিস্কিটে প্রায় ১৬০ ক্যালরি থাকে এবং ফ্যাট থাকে প্রায় ৯ গ্রামের মত।

ড্রাইফ্রুট মিক্স প্যাকেট

বাজারে বিভিন্ন কোম্পানির ড্রাইফ্রুটের যেসব মিক্স প্যাকেট পাওয়া যায় সেগুলোর বেশি ভাগ জটিল শর্করা এবং খাদ্য আঁশে ভরপুর। অনেকেই মনে করে যে এসব ড্রাইফ্রুটের এসব প্যাকেট হয়তো ক্ষতিকর নয়। কিন্তু আসলে তা ভুল।অনেক প্যাকেটে ড্রাইফ্রুটের সাথে চিনি ও চকলেটও মিশানো থাকে। তাই এগুলো চিনি এবং ফ্যাটযুক্ত থাকে।প্যাকেটের গায়ে লেখা উপাদানগুলো দেখলেই হয়তো বুঝতে পারবেন। তাই যদি খেতে চান বাসায় নিজে ছোট নোনতা বিস্কিটের টুকরো, বাদাম, শুকনো ফল মিশিয়ে খান।

সবজির চিপস

যদিও সবজির চিপস খাদ্য আঁশে ভরপুর থাকে তবুও সেগুলো আলুর চিপস এর মতই ক্ষতিকর। কারন প্যাকেট জাত এসব চিপস ক্যালরি, ফ্যাট এবং সোডিয়ামে পূর্ণ থাকে। এছাড়া অনেক সবজির চিপস প্রকৃতপক্ষে তৈরি হয় আলুর ময়দা থেকে এর সাথে বিভিন্ন খাবারের রঙ এবং গন্ধ যোগ করে আকর্ষণীয় প্যাকেটে ভরে। আর যদি খেতেই হয় খুব কম পরিমানে বাসায় তৈরি করে খান।

ফ্যান্সি সুশি

যদিও এটি একটি বিদেশি খাবার। সবাই এই খাবারটি পছন্দ করেন না বা খানও না। কিন্তু এমন অনেকেই রয়েছেন যারা খুব পছন্দ করেন। আবার দেশের বাইরে যারা থাকেন তারা অনেক পছন্দ করেন।তাদের জন্যই বলছি ভাত, মাছ, সবজি দিয়ে তৈরি একদম বেসিক যে সুশি তা খুবই স্বাস্থ্যকর কিন্তু বেশ কিছু তৈরি করা সুশি পাওয়া যায় ক্যালরি এবং ফ্যাটে পরিপূর্ণ থাকে যা মেয়োনেজ এবং পনির দেয়া থাকে সেগুলো আসলে ওজন বৃদ্ধির জন্য সহায়ক।

ঘিয়ে ভাজা পপকর্ণ

শুধু ভাজা পপকর্ণ স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভালো। প্রচুর খাদ্য আঁশ, প্রোটিন, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম এবং ভিটামিন বি৬ রয়েছে। ঘিয়ে ভাজা বা ক্যারামেলে ভাজা পপকর্ণ স্বাস্থ্য ও দেহের আকৃতি নষ্ট করার জন্য দায়ী। কারন এ এগুলোতে থাকে প্রচুর ক্যালরি। সেই সাথে ফ্যাটও থাকে।

ডায়েট ড্রিঙ্কস

আমরা অনেকেই ডায়েট কোক বা এই জাতীয় ডায়েট ড্রিঙ্কস গুলো খেয়ে ভেবে থাকি যে ওজন কমানোর জন্য যথাযথ একটি পানীয় খাচ্ছি। শুধুমাত্র বোতলের বা প্যাকেটের গায়ে ডায়েট লিখা থাকার মানেই এই নয় যে খাবারটি খুবই স্বাস্থ্যসম্মত। গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা এসব ডায়েট ড্রিঙ্কস খান না তাদের তুলনায় যারা খান তাদের ওজন দ্রুত বৃদ্ধি পায়। কারন এসব ডায়েট ড্রিঙ্কসে থাকা বিকল্প চিনি গুলো আরো চিনি বা মিষ্টি খাবারের ইচ্ছাকে বাড়িয়ে দেয়।

লেখিকা

শওকত আরা সাঈদা(লোপা)

জনস্বাস্থ্য পুষ্টিবিদ

এক্স ডায়েটিশিয়ান,পারসোনা হেল্‌থ

খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান(স্নাতকোত্তর)(এমপিএইচ)

মেলাক্কা সিটি, মালয়েশিয়া।

তথ্য সূত্রঃ fitnessbin

ফটো ক্রেডিট: weightlossfromwaistips.com