মেইন ম্যেনু

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে দিল ‘আফগান বীরেরা’

ঐতিহাসিক জয় পেল আফগানিস্তান। রোববার সুপার টেনের নিজেদের শেষ ম্যাচে গেইলবিহীন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৬ রানে হায়ে চমক দেখায় যুদ্ধবিধ্বসত দেশটি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এটা আফগানদের প্রথম জয় তো বটেই, বৈশ্বয়িক কোন টুর্নামেন্টের মূল পর্বে আইসিসির পূর্ণাঙ্গ দেশের বিপক্ষেও প্রথম জয়।

তিন ম্যাচ জিতে সেমিফাইনাল নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় এদিন গেইলকে বিশ্রাম দেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গেইলবিহীন ওয়েস্ট কেমন দল, সেটা প্রমাণও হয়ে গেল। সামনে মাত্র ১২৪ রানের টার্গেট। এই সহজ টার্গেট তাদের কাছে হিমালয় সমান হয়ে দাঁড়ালো।

আফগানদের ভালো বোলিংয়ে শুরু থেকেই উইকেট হারাতে থাকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর উইকেট পড়ে যাওয়ায় রান তুলার গতিও কমে যায়। শেষ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দরকার পড়ে ১০ রান, হাতে ছিল তিন উইকেট।কিন্তু ফ্লেচার বদ্রি মিলে তুলতে পারলেন মাত্র ৩ রান। ফলে ৬ রানে হারতে হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজকে।

ক্যারিবিয়ানদের পক্ষে ডোয়েন ব্রাভো ২৮, চার্লস ২২ রান করেন। আফগানিস্তানের পক্ষে মোহাম্মদ নবি ও রশীদ খান ২ উইকেট নেন।

এরআগে প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১২৩ রান সংগ্রহ করেছে আফগানিস্তান।

এদিন শুরুটাই খারাপ হয়েছিল আফগানদের। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে স্যামুয়েল বাদরির বলে বোল্ড হন ওপেনার উসমান ঘানি। ষষ্ঠ ওভারে স্যামুয়েল বাদরির বলে সুলেমান বেনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন অপর ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদ।

দশম ওভারে বাদরির বলে ডাওয়েন ব্রাভোর হাতে ধরা পড়েন অধিনায়ক আসঘার স্টানিকজাই। ১১তম ওভারে সুলেমান বেনের বলে ড্যারেন স্যামির হাতে ক্যাচ হন সামিউল্লাহ শেনওয়ারি।
১২তম ওভারে ড্যারেন স্যামির বলে ব্রাভোর হাতে ধরা পড়েন গুলবদিন নাইব। ১৭তম ওভারে আন্দ্রে রাসেলের বলে মারলন স্যামুয়েলসের হাতে ক্যাচ হন মোহাম্মদ নবী। ১৯তম ওভারে আন্দ্রে রাসেলের বলে আন্দ্রে ফ্লেচারের তালুবন্দী হন শফিকুল্লাহ।

আফগানিস্তানের পক্ষে মোহাম্মদ শাহজাদ ২৪, উসমান ঘানি ৪, আসঘার স্টানিকজাই ১৬, গুলবদিন নাইব ৮, সামিউল্লাহ শেনওয়ারি ১, নাজিবুল্লাহ জাদরান ৪৮*, মোহাম্মদ নবী ৯, শফিকুল্লাহ ৪, রশীদ খান ৬* রান করেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে স্যামুয়েল বাদরি ৩টি, আন্দ্রে রাসেল ২টি, সুলেমান বেন ১টি ও ড্যারেন স্যামি ১টি করে উইকেট নেন।