মেইন ম্যেনু

ঔষধ ব্যবসায়ীর অস্বাভাবিক মৃত্যু: হত্যা না আত্মহত্যা?

কে, এম, গোলাম রব্বানী, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রাম শহরের ভোকেশনাল মোড় এলাকার ঔষধ ব্যবসায়ী এসএম সায়েম (৩০) এর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে শুরু হয়েছে নানা গুণঞ্জন। বৃহস্পতিবার নিহত এসএম সায়েমের লাশের ময়না তদন্ত শেষে স্বজনদের হাতে হস্তান্তর করে পুলিশ। পরে বিকাল ৬টায় মরহুমের নামেজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবর স্থানে দাফন করা হয়। এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম সদর থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

কুড়িগ্রাম সদর থানর অফিসার ইনচার্জ জমির উদ্দিন জানান, বুধবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে ভোকেশনাল মোড় এলাকার সায়েম মেডিকেল হলের ভিতর থেকে সায়েমের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। এসময় ঔষধের দোকানের ঝাপ নামানো ছিল। প্রাথমিক ভাবে মনে হচ্ছে এটি আতœহত্যা।

তারপরও বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। নিহত সায়েম নাজিরা মিয়াপাড়া (ট্রেক্সটাইল মিল সংলগ্ন) এলাকার মোহাম্মদ আলীর পুত্র।

প্রতিবেশী ব্যবসায়ীরা জানায়, সকাল থেকে ঔষধের দোনটি ছিল বন্ধ। দুপুরের পর থেকে তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেলটি দোকানের সামনে তালাদেয় দেখতে পায়। রাত ৯টার দিকে সায়েমের ছোট ভাই সিথিল ভাইকে খুজতে এসেদেখে দোকানের সার্টার নামানো কিন্তু তালা খোলা। সন্দেহ হলে পার্শবর্তী সবাইকে নিয়ে সার্টার তুলে দেখে সিলিং ফ্যানের সাথে লাইলনের রশিতে সায়েমের নিথর শরীর ঝুলছে। ফাঁসিতে লাশ ঝুললেও হাত ছিল বাঁধা। খালি গা,শার্ট চেয়ারে রাখা। মেঝের মধ্যে হাটু গাড়া অবস্থায় ঝুলছিল। বের হয়ে এসেছে জিব্বা। দোকান ঘরের ভিতরে একদম পরিপাটি অবস্থা। এরপর খবর দেয়া হয় পুলিশকে। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ নামায়।

স্থানীয় সেলিম ও মিঠু জানায়, সায়েম ৫ বছর বয়সী এক কন্যা সন্তানের জনক। কিছু দিন থেকে সে কিছুটা অস্বাভাবিক আচরণ করে আসছে। কম বেশী সবার কাছে বিদায় নিয়েছে, অল্প কিছু দিনের মধ্যে সে বিদেশে চলে যাবে। ভদ্র স্বাভাবের হলেও অনেকের কাছে সে বেশ কিছু টাকা ধার নেয়। এ নিয়ে অশান্তিতে ছিল গোটা পরিবার। হাত বাঁধা থাকার কারনে গুঞ্জন রয়েছে এটি হত্যা না আতœহত্যা।



« (পূর্বের সংবাদ)