মেইন ম্যেনু

বেড়েই চলেছে রহস্য

কঙ্কালের আড়ালে কী

রবিনসন স্ট্রিটের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে কি কোনও যৌন সম্পর্ক ছিল? কঙ্কালকাণ্ডে শেক্সপিয়র সরণির বাড়ির একমাত্র জীবিত সদস্য পার্থ দে-র ডায়েরি হাতে পেয়ে এমনটাই সন্দেহ তদন্তকারীদের। বৃহস্পতিবার পার্থর বাবা অরবিন্দবাবুর অগ্নিদগ্ধ দেহ উদ্ধারের সঙ্গে দিদি দেবযানী এবং দুই পোষা কুকুরের কঙ্কাল উদ্ধার করে পুলিশ। পার্থকে গ্রেফতারের পর মানসিক হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই মনোবিদেরা তাঁর চিকৎসা করছেন। পাশাপাশি পুলিশও জেরা করছেন। যদিও তদন্তকারীদের তিনি কোনও রকম সহযোগিতা করতে চাইছেন না বলে জানা গিয়েছে।

দিদি দেবযানীর কঙ্কালের কাছেই রাখা পোষ্যের কঙ্কাল।

দিদি দেবযানীর কঙ্কালের কাছেই রাখা পোষ্যের কঙ্কাল।

সরকারি সূত্রে খবর,  শুক্রবার পাভলভ হাসপাতালে তিন মনোবিদ পার্থর সঙ্গে দেখা করতে গেলে তিনি তাঁদের কোনও প্রশ্নেরই জবাব দিতে চাননি। উল্টে কেন তাঁকে হোমে রাখা হয়েছে সেই নিয়ে প্রশ্ন করতে থাকেন রবিনসন স্ট্রিটের দে পরিবারের একমাত্র জীবিত সদস্য।
পুলিশ সূত্রের খবর, ওই বাড়ি থেকে পার্থর যে ডায়েরি উদ্ধার করেছে পুলিশ। তা থেকেই বেশ কিছু তথ্য হাতে এসেছে গোয়েন্দাদের। এমন কিছু কথা পাওয়া গেছে যাতে পারস্পারিক যৌন সম্পর্কের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে বলে ধারণা গোয়েন্দাদের। অন্য দিকে, দেবযানীর ময়নাতদন্তের রিপোর্টে আঘাতের কোনও চিহ্ন মেলেনি বলে জানা গিয়েছে।