মেইন ম্যেনু

‘কত খাদিজার বদলে আমরা নিরাপত্তা পাব’

সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করে কলেজটির শিক্ষার্থীরা। বুধবার সকাল ১১টায় সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রীদের উদ্যোগে ক্যাম্পাস থেকে একটি বিক্ষোভ নগরীর চৌহাট্টা রিকাবীবাজার, জিন্দাবাজার ঘুরে ক্যাম্পাসের সামনে ফিরে আসে।

এ সময় ছাত্রীরা নগরীর চৌহাট্টা-জিন্দাবাজার সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। তারা হামলাকারী শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলমের সর্ব্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান। ঘণ্টাখানেক বিক্ষোভের পর এক পর্যায়ে কলেজ শিক্ষকদের আশ্বাসে ছাত্রীরা রাস্তা ছেড়ে ক্যাম্পাসে ফেরেন।

সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী ও আন্দোলনের সংগঠক ফজিলাতুন্নেসা বলেন, আমরা নিরাপত্তাহীনতা বোধ করছি। আমাদের বাবা-মা আমাদেরকে স্কুল কলেজে পাঠিয়ে শঙ্কায় থাকেন। কোপানোর সংস্কৃতি আজ কলেজে ঢুকে গেছে। খাদিজা এখন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। আর কত খাদিজার বদলে আমরা নিরাপত্তা পাব।

সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম বলেন, প্রকাশ্যে দিবালোকে একটা ক্যাম্পাসে এই ধরনের হামলা বর্বরতম। আমরা এর দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

এদিকে সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার তেমুখীতে মানববন্ধন করে খাদিজার এলাকার লোকজন।

উল্লেখ্য, সোমবার বিকেলে সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে প্রকাশ্যে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম করে শাবিপ্রবি ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলম। খাদিজাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও রাতে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। এ ঘটনায় হামলাকারী বদরুলকে আসামি করে শাহপরান থানায় খাদিজার চাচা আবদুল কুদ্দুস বাদী হয়ে মামলা করেন। হামলাকালে এমসি কলেজের শিক্ষার্থীরা বদরুলকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।