মেইন ম্যেনু

কথাসাহিত্যিক ‌‌‌হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন আজ

হুমায়ূন আহমেদ। বাংলা সাহিত্যের নন্দিত কথাকার। জনপ্রিয়তার যে উচ্চ শৃঙ্গ তিনি স্পর্শ করেছিলেন বাংলা সাহিত্যে ও সংস্কৃতিতে, তা বিস্ময়কর। শুধু জনপ্রিয়তার নিরিখেই নয় গুণগত মানের উচ্চতাতেও চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন তিনি। আজ সেই বরেণ্য লেখক, নির্মাতার ৬৭তম জন্মদিন।

বাংলাদেশের ঘরে ঘরে হাজারো পাঠকের হৃদয়ে ঝড় তোলা এই জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক জন্মেছিলেন ১৩ নভেম্বর, ১৯৪৮ সালে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া থানার কুতুবপুর গ্রামে। তিনি একাধারে ঔপন্যাসিক, ছোটগল্পকার, নাট্যকার, সিনেমাকার। বলা হয় বাংলাভাষায় কল্পবিজ্ঞান সাহিত্যের তিনি পথিকৃৎ।

২০১২ বইমেলা পর্যন্ত তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা তিন শতাধিক। তাঁর সোনার কলম থেকেই তৈরি হয়েছে কিংবদন্তী সাহিত্য চরিত্র মিসির আলী, হিমু, বাকের ভাইরা। জীবনের শেষ কয়েক বছরে লিখেছেন জোছনা ও জননীর গল্প, দেয়ালের মতন মহাকাব্যিক সব উপন্যাস।

বাংলা কথাসাহিত্যে হুমায়ূন আহমেদ সংলাপপ্রধান নতুন ভাষাশৈলীর জনক। অতুলনীয় জনপ্রিয়তার পরেও তিনি অন্তরাল জীবন-যাপন এবং লেখালেখি ও চিত্রনির্মাণ নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। পেয়েছেন দেশের প্রায় সব রাষ্ট্রীয় ও সাহিত্য পুরষ্কার, সবচেয়ে বড় পুরস্কার হিসেবে পেয়েছেন গণমানুষের ভালোবাসা।

২০১২ সালের ১৯ জুলাই নিজের প্রিয় নন্দনকানন নূহাশ পল্লী থেকে বহুদূরে, নিউইয়র্কের বেলভিউ হাসপাতালেই কর্কট রোগের কাছে পরাজিত হয়ে মৃত্যুর কাছে হার মানেন অমিত শক্তির এই লেখক। তাঁর ইচ্ছে অনুযায়ী তাকে সমাধীস্থ করা হয় নুহাশ পল্লীতেই।