মেইন ম্যেনু

কনকর্ডের ১৮ তলা ভবন এতিমখানাকে দেয়ার নির্দেশ বহাল

রাজধানীর আজিমপুরে স্যার সলিমুল্লাহ মুসলিম এতিমখানার জায়গায় আবাসন প্রতিষ্ঠান কনকর্ডের তৈরি ১৮ তলা ভবন এতিমখানাকে হস্তান্তরের নির্দেশ বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি।

মঙ্গলবার চেম্বার বিচারপতি মোহাম্মাদ ইমান আলী এ আদেশ দেন।

আজ আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ, কনকর্ডের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম।

পরে আদালত থেকে বেরিয়ে রিটকারির পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান বিসয়টি সাংবাদিকদের বলেন।

এর আগে হাইকোর্ট আগামী ৩০ দিনের মধ্যে এ ভবন ও সম্পত্তি এতিমখানাকে বুঝিয়ে দিতে বলেন।

বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে জারি করা এক রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ চার দফা নির্দেশনা দিয়ে এ রায় দেন।

সে রায়ের স্থগিত চেয়ে আজ মঙ্গলবার কনকর্ড কর্তপক্ষ একটি আবেদন করলে শুনানি শেষে চেম্বার বিচারপতি ‘আউট অব লিস্ট’ বলে আদেশ দেন। অর্থাৎ হাইকোর্টর রায়ই বহাল থাকবে।

এতিমখানা রক্ষায় আদালতের চার দফা নির্দেশনা হলো- আজিমপুর এতিমখানার সম্পত্তি সংরক্ষণ করতে হবে। এতিমখানার সম্পত্তি হস্তান্তর সম্পর্কে ২০১৩ সালের ২২ জুলাইয়ের দলিল এবং ২০১৪ সালের ১৩ এপ্রিলের আমমোক্তার নামা দলিল বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। কারণ সেগুলো শুরু থেকেই বাতিল, এতিমখানার জায়গায় কনকর্ডের তৈরি ১৮ তলা বিল্ডিং এতিমখানার পক্ষে বাজেয়াপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। কনকর্ডকে আগামী ৩০ দিনের মধ্যে স্থাপনা ও সম্পত্তি এতিমখানাকে বুঝিয়ে দিতে বলা হয়েছে। ব্যর্থতায় সরকারকে সম্পত্তি বুঝিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয় এবং এতিমখানার প্রয়োজনে ডেভেলপ করার নির্দেশ দেয়া হয়।

মনজিল মোরসেদ বলেন, ১৯০৯ সালে ঢাকার নবাব ‘সলিমুল্লাহ এতিমখানা’ স্থাপন করে এবং পরবর্তী সরকারের কাছ থেকে আজিমপুর সলিমুল্লাহ মুসলিম এতিমখানা সম্প্রসারণের জন্য বিভিন্ন সময় জমি লিজ নিয়ে পরিচালনা করে আসছে। গত ২০০৩ সালের ২২ জুলাই এতিমখানার সভাপতি শামসুন্নাহার ও সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট জি এ খান আহসান উল্লাহ এতিমখানার দুই বিঘা জমি ডেভেলপার কোম্পানি কনকর্ডের কাছে হস্তান্তর করেন।

এতিমখানার সম্পত্তি অবৈধ হস্তান্তর সংক্রান্ত প্রতিবেদন বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশ পায়। পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর তা সংযুক্ত করে চার জন ছাত্রের পক্ষে রিট পিটিশন দায়ের করেন মনজিল মোরসেদ। পরবর্তীতে ওই রিট পিটিশনে মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস এণ্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরপিবি)পক্ষভুক্ত হয়।

রিট আবেদনে বলা হয়, এতিমখানার সম্পত্তি সরকারে কাছ থেকে লিজ নেয়া এবং লিজ চুক্তিতে এতিম খানার সম্প্রসারণের জন্য বিনামূল্যে দেয়া হয় এবং শর্ত ছিল প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজন ব্যতীত অন্য কোনো কাজে জমি ব্যবহার করা যাবে না। তা সত্ত্বেও এতিমখানার সভাপতি ও সেক্রেটারি সম্পূর্ণ অবৈধভাবে আর্থিক লাভবান হয়ে এতিমখানার সম্পত্তি কনকর্ড গ্রুপের কাছে হস্তান্তর করেছিলেন।