মেইন ম্যেনু

কনে রেখেই পালালেন বর!

মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার কাপসাইল গ্রামে সুমাইয়া আক্তার (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রীর বিয়ে পন্ড হয়ে গেছে। শুক্রবার বিকালে পুলিশ তাদের বাড়িতে হানা দিলে পন্ড হয়ে যায় বিয়ের সব আয়োজন।

জানা যায়, গ্রামের রফিক মোল্লার মেয়ে সুমাইয়া পাশর্^বর্তী সাটুরিয়া উপজেলার তিল্লী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী। আর বর সাটুরিয়া উপজেলার হরগজ গ্রামের মৃত রতন মোল্লার ছেলে ইলেকট্রিক মেকার ওয়াদুদ মোল্লা (২৮)

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ওয়াদুদের সঙ্গে সুমাইয়ার পারিবারিকভাবে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন স্বজনরা। শুক্রবার সকাল থেকে সুমাইয়ার বাবার বাড়িতে বিয়ের আয়োজন শুরু হয়।

দুপুরে আনুষ্ঠানিকভাবে কনে নিতে আসেন বরসহ যাত্রীরা। তিনটার দিকে বরযাত্রীদের খাওয়া-দাওয়া চলছিল। এ সময় বাল্য বিয়ের খবর পেয়ে পুলিশ ওই বাড়িতে হানা দেয়।

সেখানে অভিভাবক ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে সুমাইয়ার অপ্রাপ্ত বয়স নিশ্চিত হয় পুলিশ।

এর পরপরই পুলিশ আইনি ব্যবস্থা নিতে চাইলে স্বেচ্ছায় এই বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেন অভিভাবকরা। পরে কনে ছাড়াই বরসহ যাত্রীরাও ফিরে যান বাড়িতে।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল নিশাত জানান, প্রাপ্ত বয়স না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে দিবেন না বলে রফিক মুচলেকা দিয়েছেন। এরপরও অপ্রাপ্ত বয়সের মেয়েটিকে বিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।