মেইন ম্যেনু

কবরস্থানে যৌনতার অবাধ মিলনমেলার আখড়া!

মানুষ কতটা নিচে নামতে পারে তা হয়তো আপনি এ খবরটি না পড়লে বুঝতে পারতেন না।

মৃত‌্যুর পর আমাদের সকলের ঠিকানা কবরস্থানে। কিন্তু সেই পরিণত হয়েছে যৌনাচারী ও মাদকসেবী মানুষের আখড়ায়। সেখানে মদ ও নারী নিয়ে আড্ডা চলে দিনরাত। খবর ডেইলি মেইল।

ওই কবরস্থানটিতে নতুন কোনো মরদেহ দাফন করা হয় না। কিন্তু চারদিকে ঝোপঝাড়ওয়ালা ছোটখাটো সেই স্থানটিতে জমে উঠেছে যৌনতার অবাধ মিলনমেলায়।

ব্রিটেনের রাজধানী লন্ডনের একটি কবরস্থানকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে ওই আড্ডা। এ নিয়ে ভীষণ অতিষ্ঠ এলাকার বাসিন্দারা। স্থানীয়রা এ নিয়ে পুলিশকেও অভিযোগ জানিয়েছেন। এলাকর বাসিন্দা এক লেখক ডেমিয়েন ডুগান-রায়ান জানান, `যাঁরা এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত, তাদের বেশির ভাগই ভবঘুরে আর গৃহহীন। শতাব্দী প্রাচীন আর ঐতিহ্যবাহী এই স্থানে এমন কাজ হচ্ছে, যা ভাষায় বর্ণনা করা যায় না।`

এলাকার বাসিন্দাদের আরো অভিযোগ, জায়গাটির রেলিং বা পাচিল বেশি উঁচু নয়। ফলে সহজেই টপকে ঢোকা যায় এর ভেতরে। আর এ জন্যই এটা মাদক নেওয়া আর উদ্দাম যৌনতার স্বর্গরাজ্য হয়ে উঠেছে।

স্থানীয় একটি রেস্তোরাঁর মালিক আতিক চৌধুরী বলেন, `কবরস্থানে ঘোরাফেরা করা উন্মাদের দল এলাকার তরুণী মেয়েদের ওপর নজর দিয়েছে। জানি না কবে বড় দুর্ঘটনা ঘটে যাবে।

এই গোরস্থানটি ও সংলগ্ন গির্জাটি ১৮৪০ সালে তৈরি করা হয়েছিল। এটি ইউরোপের অন্যতম পুরোনো গির্জা। কিন্তু এখানে লোকজন যায় না। কারণ কবরগুলো ঘিরে গাছ গজিয়ে উঠে সেগুলোতে ফাটল ধরিয়ে দিয়েছে। ফলে সেখানে পূণ্যার্থী বা দর্শনার্থীদের দেখা যায় না। এ সুযোগে জায়গাটি হয়ে উঠেছে অবৈধ আড্ডার স্থান।