মেইন ম্যেনু

কলকাতায় বসে কোহলির হুংকার

মহেন্দ্র সিং ধোনির অধ্যায় শেষ। ভারতীয় টেস্ট ক্রিকেটে এখন শুরু হয়েছে বিরাট কোহলির যুগ। গত বছর অস্ট্রেলিয়া সফরেই ধোনির অবসরে ভারতের টেস্ট অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পান কোহলি। এবার তার নেতৃত্বেই বাংলাদেশে টেস্ট খেলতে আসছে ভারত।

একটি টেস্ট ও তিনটি ওয়ানডে খেলতে আগামীকাল বাংলাদেশে আসছে ভারতীয় দল। বাংলাদেশে আসার দুইদিন আগে কলকাতায় আসে তারা। সেখানে অনুশীলন ও ফিটনেস ক্যাম্প করেন কোহলিরা। আজই ছিল সেখানে তাদের অনুশীলনের শেষ দিন। দিন শেষে কোহলি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সব সময়ই শেখার ও উন্নতির সুযোগ থাকে। তবে এখন শেখার পাশাপাশি জয়ও চান তিনি। বাংলাদেশে জিততে আসবেন তারা। জয়টাই তাদের প্রাথমিক লক্ষ্য।

কোহলি বলেন, ‘টেস্ট ক্রিকেটের জন্য দলের পরিবেশ ও জিততে চাওয়া সংস্কৃতির উন্নয়নটাই হচ্ছে আমাদের অগ্রাধিকার। নতুন একটি সূচনার জন্য সবাই বেশ মুখিয়ে আছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে বেশ উদ্দীপ্ত। আমি মনে করি ইতিমধ্যে আমরা অনেক কিছু শিখেছি। আমি মনে করি না যে, সব সময়ই শেখার মানসিকতা নিয়ে আমাদের খেলতে হবে। দলের প্রত্যেকেই অনেক ক্রিকেট খেলেছে। এখন শেখার চেয়ে জয় পাওয়াটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। অবশ্যই আমরা শিখব। তবে এখন থেকে আমরা শেখার চেয়ে বেশি জিততে চাইব।’

তিনি আরো বলেন, ‘এখন আমরা দলগতভাবে কিছু অর্জন করতে চাই। ধারাবাহিকভাবে উন্নতি করতে চাই। আমাদের দলের সবারই সে দক্ষতা রয়েছে। সেগুলোকে এখন ফলে পরিণত করতে হবে। ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের চেয়ে দলগত পারফরম্যান্সের দিকে বেশি মনোযোগী হতে হবে। বাংলাদেশের বিপক্ষে জয়ই আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য। সেক্ষেত্রে কেউ যদি ব্যক্তিগতভাবে ভালো খেলে সেটা আমাদের জন্য বাড়তি পাওনা হবে। বার্তা একটাই- আমাদের ব্যক্তিগত কোনো লক্ষ্য নেই। সবই দলগত।’

টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে বাংলাদেশ সফরটি তার জন্য চ্যালেঞ্জ কিনা জানতে চাইলে কোহলি বলেন, ‘এর আগেও আমি দলের অধিনায়কত্ব করেছি। আসলে আমরা কিছু করার মধ্য দিয়েই শিখি। টেস্ট ক্রিকেট আসলে পুরোটাই নতুন বলের খেলা। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে অল্প পরিসরে পরিকল্পনা করা যায়। কিন্তু টেস্টে আপনাকে পুরো একটি দিনের জন্য পরিকল্পনা করতে হবে। বোলার ও তাদের কাজের চাপের বিষয়টি দারুণভাবে সামলাতে হবে। প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের নিয়েও আপনাকে পরিকল্পনা করতে হবে। এসব ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতাটা কাজে লাগবে। রোহিত, ইশান্ত ও অশ্বিন সবাই বেশ অভিজ্ঞ। দলের সাফল্যে তারা সবাই ভূমিকা রাখতে চায়। আশা করছি বাংলাদেশের বিপক্ষে আমরা ভালো করতে পারব।’

উল্লেখ্য, আগামী ১০ জুন থেকে ফতুল্লায় শুরু হবে বাংলাদেশ-ভারত একমাত্র টেস্ট ম্যাচটি। এরপর ১৮, ২১ ও ২৪ জুন মিরপুরে অনুষ্ঠিত হবে তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ। ওয়ানডে সিরিজে ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দেবেন ধোনি।

তথ্যসূত্র : উইজডেন ইন্ডিয়া



« (পূর্বের সংবাদ)