মেইন ম্যেনু

কলারোয়ায় দু’দিন ব্যাপী ডিজিটাল মেলা উদ্বোধন

‘উন্নয়নের পাসওয়ার্ড আমাদের হাতেই’-এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে শুক্রবার সকালে কলারোয়া উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ইন্টারনেট সপ্তাহ ও দু’দিন ব্যাপী ডিজিটাল মেলার উদ্বোধন ঘোষণা করেন প্রধান অতিথি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান। ফিতা কেটে মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা শেষে উপজেলা পরিষদ চত্বরে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার উত্তম কুমার রায়।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান বলেন, সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন এখন বাস্তবে রূপ নিয়েছে। তাই ঘরে বসে মানুষ এখন গোটা বিশ্বকে দেখতে পাচ্ছে। সেই সাথে আমাদের এক মেয়ে ঘরে বসে আয় করে সারা দুনিয়াকে জানিয়ে দিয়েছে আমরাও পারি।

তিনি আরও বলেন, আজকের প্রজন্ম এই প্রযুক্তিকে সঠিকভাবে কাজে লাগিয়ে আরও দ্রুততার সাথে আমাদের এই প্রিয় মাতৃভূমিকে বিশ্ব দরবারে মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করবে। আর সেজন্য আমাদের উচিৎ নতুন প্রজন্ম যাতে প্রযুক্তির সর্বোচ্চ সুবিধা পায় সে ব্যাপারে সার্বিক সহযোগিতা করা।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কলারোয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু ও সেলিনা আনোয়ার ময়না, পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র রফিকুল ইসলাম, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক এমএ ফারুক প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কলারোয়ার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সানজিদা ইয়াসমিন, উপজেলা এসিস্ট্যান্ট প্রোগ্রামার শাহাদাৎ হোসেন, ইউপি চেয়ারম্যান স,ম মোরশেদ আলী, সহকারী অধ্যাপক এমএ কালাম, মোয়াজ্জেম হোসেন, এসএম শহিদুল ইসলাম, ভুট্টোলাল গাইন, কলারোয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি আমানুল্লাহ আমান, কল্যাণ সমিতির সভাপতি হরিসাধন ঘোষ, প্রধান শিক্ষক আব্দুর রব, প্রধান শিক্ষক বদরুজ্জামান বিপ্লব, কলারোয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি শিক্ষক দীপক শেঠ, সাধারণ সম্পাদক শেখ জুলফিকারুজ্জামান জিল্লু, সাবেক সভাপতি গোলাম রহমান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রধান শিক্ষক রাশেদুল হাসান কামরুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক আরিফ মাহমুদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কেএম আনিছুর রহমান, কলারোয়া রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি আজাদুর রহমান খান চৌধুরী পলাশ, সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন, কোষাধ্যক্ষ জুলফিকার আলী, কলারোয়া পাবলিক ইনস্টিটিউট’র সাধারণ সম্পাদক এড. শেখ কামাল রেজা, সাংবাদিক আব্দুর রহমান, শামছুর রহমান লাল্টু, ইকরামুল কবির, এবিএম ফিরোজ, ফিরোজ জোয়ার্দার, বাবলু হোসেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল হামিদ, একাডেমিক সুপারভাইজার তাপস কুমার দাস, কলারোয়া আলিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাও আইয়ুব আলী, প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন, প্রধান শিক্ষক আক্তার আসাদুজ্জামান চান্দু, প্রধান শিক্ষক আজহারুল ইসলাম, প্রধান শিক্ষক নূরুল ইসলাম, প্রধান শিক্ষক ফজলুল করিম, প্রধান শিক্ষক ইবাদুল হক, প্রধান শিক্ষক আব্দল্লাহেল আলিম বাবু, প্রধান শিক্ষক উয়ায়েস আলী সিদ্দিকী বাবর, প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর হোসেন, প্রধান শিক্ষক আব্দুল হান্নান, সহকারী প্রধান শিক্ষক আবদুর রকীব, বদরুজ্জামান, আসাদুজ্জামান আসাদ, মাদরাসা শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এটিএম রুহুল কুদ্দুস, মাস্টার শেখ শাহাজাহান আলী শাহিনসহ উপজেলা প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা, স্কুল-মাদরাসার শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রীসহ বিপুল সংখ্যক মানুষ।

সমগ্র অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা শেখ ফারুক হোসেন। এদিকে, আলোচনা সভার শুরুতে সভাস্থলে উপস্থিত ইউপি চেয়ারম্যানগণ একযোগে সভাস্থল ছেড়ে চলে যান। এর কারণ জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান স,ম মোরশেদ আলী ও অধ্যাপক এমএ কালাম সাংবাদিকদের জানান, ডিজিটাল মেলার শুরুতে প্রধান অতিথি’র পুস্প স্তাবক দেওয়া এবং বক্তব্য দেওয়ার বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যানদের না রাখায় তাঁরা প্রতিবাদ স্বরূপ সভাস্থল ত্যাগ করেন। তবে অপর ইউপি চেয়ারম্যান ভুট্টোলাল গাইন সাংবাদিকদের জানান, ঘটনার পরপরই উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ স্বপনের আহ্বানে আমরা আবার সভাস্থলে ফিরে আসি।

একই বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রধান শিক্ষক আমানুল্লাহ আমানও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। উল্লেখ্য, মেলায় উপজেলা প্রশাসন, ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র, মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, গ্রামীণ ফোন এবং এনজিও উত্তরণ’র পক্ষ থেকে সর্বমোট ১৪টি স্টল দেওয়া হয়।