মেইন ম্যেনু

কাজেও আপনি স্মার্ট পুরুষ

স্মার্ট পুরুষের স্মার্টনেস শুধু সাজ পোশাকে নয় সময়ানুবর্তীতায়ও। সব কাজ সঠিক সময়ে ঠিকঠাকভাবে করা স্মার্টনেসের একটি অংশ। কিন্তু অনেকেই সমস্যায় পড়ে যান পরিকল্পনা মাফিক কাজ করতে না পেরে। শরীরের সুস্থতা বজায় রেখে সব কাজ সঠিকভাবে সম্পাদন করতে দরকার কিছু কৌশল অবলম্বন করা। আসুন শিখে নেয়া যাক কিভাবে স্মার্ট পুরুষ তার কাজেও স্মার্ট হতে পারেন…

– সকালে একটু আগেভাগেই অ্যালার্ম দিয়ে রাখতে পারেন। তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস থাকলে মন যেমন ফুরফুরে থাকবে, তেমনি সময়মতো কর্মক্ষেত্রে পৌঁছানো সহজ হবে।

– সকালে গোসল করে বের হলে সারাদিন অফিসে বা কর্মক্ষেত্রে থাকতে কষ্ট কম হয়। কাজের প্রতিও আগ্রহ বাড়ে।

– অফিস থেকে ফিরে আবার গোসল করে নিতে পারেন। সারাদিনে শরীরে জমা ময়লা আর ক্লান্তি দুই-ই দূর হবে, রাতের ঘুম হবে অনেক ভালো।

– প্রতিদিন সাবান দিয়ে গোসল করার অভ্যাস করুন। ডেটল জাতীয় সাবান ব্যবহার করলে রোগজীবাণু প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

– পরের দিন যে কাজ করবেন, যার সঙ্গে দেখা করবেন তা আগের দিন ঘুমানোর আগে পরিকল্পনা করে রাখতে পারেন। কোনোমতেই ভুলতে না চাইলে ডায়েরি, মোবাইল বা নির্দিষ্ট কোথাও নোট করে রাখতে পারেন। এতে পরিকল্পনামাফিক কাজ করা সহজ হবে।

– বেশি রাত জাগার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে। তাড়াতাড়ি ঘুমালে সকালে বিছানা ছাড়তে সহজ হবে। তাছাড়া দেরি করে ঘুমালে বা দেরি করে ঘুম থেকে উঠলে আপনার সারাদিনের পরিকল্পনা এলোমেলো হয়ে যেতে পারে। এছাড়া রাত জাগাটা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

– কর্মক্ষেত্রের একাধিক পোশাক রাখুন। এক পোশাক বারবার না পরে একদিন পরে ধুয়ে ফেলুন। শরীরের সঙ্গে মানিয়ে যাওয়া হালকা সুগন্ধিও ব্যবহার করতে পারেন। সবসময় ধোয়া এবং আয়রন করা কাপড় পররে শরীরের সঙ্গে মনটাও ফুরফুরে থাকবে।

– বাইরে রোদ ও ধুলাবালি এড়াতে ব্যক্তিত্ব ও পোশাকের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ রোদচশমা ব্যবহার করতে পারেন।



« (পূর্বের সংবাদ)