মেইন ম্যেনু

কানের ভেতরেই থাকবে আস্ত কম্পিউটার!

একসময় কম্পিউটার রাখতে বিশালাকার ঘরের প্রয়োজন হতো। দিন দিন নতুন নতুন চিপস আবিষ্কার হয়েছে, আর সেই সঙ্গে কমেছে কম্পিউটারের আকারও। তবে যত ছোটই হোক, একটা আস্ত কম্পিউটার কানের ভেতর রাখা যাবে ভাবতেই কেমন লাগে!

যেমনই লাগুক, এমনি এক ক্ষুদ্র কম্পিউটার আবিষ্কার করলেন নিকোলাই ভিড নামে একজন অ্যাথলেট। নিকোলিড শুধু অ্যাথলেটই নন, তিনি একাধারে একজন প্রযুক্তিবিদ এবং একটি ডিজাইন সংস্থারও প্রধান। তার আবিষ্কৃত নতুন এই কম্পিউটারের নাম ‘দ্য ড্যাশ’। এটি দেখতে একটি তারহীন ইয়ারফোনের মতো।

এই কম্পিউটারটি আপনাকে গান শোনানোর পাশাপাশি পরিমাপ করতে পারবে আপনার হৃদস্পন্দন। নদীতে কিংবা সমুদ্রে যেখানেই সাঁতার কাটেন না কেন, ড্যাশ আপনাকে অবিরাম গান শোনাবে। ব্রাজি নামে একটি প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যনির্বাহী নিকোলাই ভিড।

তিনি বলেন, ‘দ্য ড্যাশ তৈরি করাটা একটা বিশাল চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। আমরা এখনো ড্যাশের পূর্ণাঙ্গ রুপ দিতেই কাজ করে যাচ্ছি। এটা আসলে একটা অতি ছোট কম্পিউটার, যার ক্ষমতা বছর পনেরো আগের ল্যাপটপের মতো। কিন্তু ডিভাইসটা এতো ছোট যে, তা কানের ওপরে না লাগিয়ে, কানের ভেতরেই রাখা যায়৷ সেখান থেকে ডিভাইসটা যে শুধু আপনার মনোরঞ্জন করবে তা নয়, আপনার কাজে সহযোগিতা করবে এমনকি আপনার স্বাস্থ্যের খেয়াল রাখবে।’

ড্যাশ নিয়ে কাজ করছে নিকোলাসসহ তার ৪০ বন্ধু। ড্যাশ বাজারে পাওয়া যাবে তিনটি সাইজে। তাই যে কোনো কানেই ব্যবহার করা যাবে এটি। ড্যাশের মূল্য কেমন হতে পারে তা নিয়ে কোন তথ্য দেয়নি নিকোলাইয়ের প্রতিষ্ঠান ব্রাজি।